ঈদের কেনাকাটা করতে গিয়ে নদীতে ডুবলো মা-মেয়ে

 সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা সীমান্তের পাটলাই নদীতে পাথর বোঝাই নৌকার সঙ্গে স্পিডবোটের সংঘর্ষে পানিতে ডুবে মা ও মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন আরও ৬ জন। সোমবার সন্ধ্যায় বালিয়াঘাট বিজিবি ক্যাম্পের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, স্পিডবোটের চালক উপজেলার সদর ইউনিয়ন রতনশ্রী গ্রামের বদরুল আমিন ওরফে বরুজের স্ত্রী জোসনা আক্তার ও  তার মেয়ে রুমি আক্তার। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খাঁর মেয়ে রিনা বেগম, শাপলা ও চালক বদরুল আমিন বরুজসহ ছয়জন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঈদের কেনাকাটা করতে সোমবার বিকেলে উপজেলার বাদাঘাট বাজার থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খানের ব্যক্তিগত স্পিডবোট নিয়ে বালিয়াঘাটে উদ্দেশে যাচ্ছিলেন বরুজ মিয়া। স্পিটবোডে আবুল হোসেন খানের মেয়ে, চালক বরুজ মিয়ার স্ত্রী ও চার ছেলে-মেয়েসহ আটজন ছিলেন। পথে বালিয়াঘাট বিজিবি ক্যাম্পের সামনে পাটলাই নদীতে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি পাথরবাহী বাল্কহেড নৌকা ধাক্কা দিলে স্পিডবোটটি ডুবে যায়। এ সময় নদীতে নিখোঁজ হন বরুজ মিয়ার স্ত্রী ও এক মেয়ে। ঘটনার পরই স্থানীয়রা অন্যদের জীবিত উদ্ধার করলেও প্রায় দেড় ঘণ্টা পর মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার করেন।

চালক বরুজ মিয়ার চাচাতো ভাই বুলবুল আহমেদ জানান, চোখের সামনে স্ত্রী ও সন্তানের মৃত্যুর ঘটনায় বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন তার ভাই।

তাহিরপুর থানার ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, স্পিডবোট ডুবে দুইজন মারা গেছেন বলে জানা গেছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here