পুলিশের বিরুদ্ধের মামলা প্রত্যাহারের দাবী

নিজস্ব প্রতিনিধিঃবরিশালের উজিরপুরে পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে সচেতন নাগরিকের ব্যানারে মানব বন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। ৮ জুলাই বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টায় উপজেলা পরিষদের সম্মুখে প্রধান সড়কে শতশত নারী পুরুষ মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। এ সময় বক্তৃতা করেন পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর বাবুল সিকদার, বর্তমান কাউন্সিলর রিপন মোল্লা, মামুন হাওলাদার, নাসির উদ্দিন সিকদার, ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন, শিক্ষক আবুল বাশার প্রমূখ। নারী আসামীকে যৌন ও শারীরিক নির্যাতনের মিথ্যা অভিযোগে সহকারী পুলিশ সুপার উজিরপুর সার্কেল আবু জাফর মোহাম্মদ রহমতউল্লাহ, উজিরপুর মডেল থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) মো.জিয়াউল আহসান ও পুলিশ পরিদর্শক(ওসিতদন্ত) মো.মাইনুল ইসলাম’সহ ৬ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করায় বিক্ষুব্দরা মানব বন্ধন করেন দ্রুত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানান। মামলা প্রত্যাহারের করা না হলে পরবর্তীতে কঠোর আন্দোলন কর্মসূচীর হুশিয়ারী দেন। মানব বন্ধন শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন।
উল্লেখ্য, ২৫ জুন রাত পৌনে দুইটায় উপজেলার হারতা ইউনিয়নের জামবাড়ি পরকিয়া প্রেমিকা মিতু ভাংড়ার ভাড়া বাড়ির সামনে থেকে ব্যবসায়ী বাসুদেব চক্রবর্তী টুনুকে মুমুর্ষ অবস্থায় স্থানীয়রা হারতা বাজারে ডাক্তারের কাছে নিলে সেখানে ভোর সাড়ে ৪টায় মারা যান। থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরিশাল মর্গে প্রেরণ করেন। ওই ঘটনায় মিতু ভাংড়াসহ অজ্ঞাত ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে উজিরপুর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের ভাই বরুন চক্রবর্তী। সে ঘটনায় পুলিশ মিতু ভাংড়াকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। এরপর থানা পুলিশ রহস্য উদঘাটনের জন্য আদালতে মিতু ভাংড়ার ৫দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত ২দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ড শেষে ওই পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আদালতে শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের অভিযোগ তোলেন। এরপর আদালতের নির্দেশে মামলা দায়ের হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here