মেহেন্দিগঞ্জে বিজয়ী মেম্বার প্রার্থীর হামলায় পরাজিত প্রার্থী ও তার কর্মী সমর্থকসহ আহত ৪

 

মেহেন্দিগঞ্জ প্রতিনিধি : মেহেন্দিগঞ্জ সদর ইউপি নির্বাচনে ০৯ নং ওয়ার্ডে পরাজিত মেম্বার প্রার্থী আজাদ ভূইয়া’র ও তার কর্মী সমর্থকদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ বিজয়ী প্রার্থী আমির জমদ্দার’র নেতৃত্বে তার কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে । এ সময় পরাজিত প্রার্থীর পক্ষে ৪ কর্মী সমর্থক আহত হয়েছে। আহতদের কে স্থানীয়রা উদ্ধার করে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সুত্র জানায় শুক্রবার বিকাল আনুমানিক ০৫ টার সময় ওই ইউনিয়নের ০৯ নং ওয়ার্ড বাহাদুরপুর বাজারে হামলার ঘটনাটি ঘটে। আহত পক্ষের অভিযোগ, নির্বাচনের বিরোধের জের ধরে তাদের উপর এ হামলা চালায় বিজয়ী প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা। হামলাকারীরা অতর্কিত ভাবে হামলা চালিয়ে ০৬ টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙ্গচুর ও লুটপাট করেন। অভিযোগ উঠেছে বিজয়ী প্রার্থী আমীর জমাদ্দার’র নের্তৃত্বে তার লোকজন এ হামলা চালায়। হামলায় আহতরা হলেন, নিজাম হাওলাদার, সোহাগ হোসেন, রিফাত হাওলাদার ও সাজেদা বেগম। ক্ষতিগ্রস্ত দোকান মালিকরা হলেন পরাজিত মেম্বার প্রার্থী আজাদ ভূইয়া ও তার সমর্থক জামাল মৃধা, রব হাওলাদার, নিজাম হাওলাদার, নুরুল ইসলাম হাওলাদার। গতকাল সকালে সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয়দের সাথে আলাপকালে জানা যায়, নির্বাচনের রাতে দুই প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনার জের ধরে বিজয়ী প্রার্থীর নের্তৃত্বে এ হামলার ঘটনাটি ঘটে। হামলাকারীদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি ওই বাজারের শাজাহান খান’র প্রতিবন্ধী ছেলে রুবেল খান’র ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও আজাদ’র নির্বাচনী প্রচারণার কাজে ব্যবহৃত অটোগাড়িটি। প্রতিবন্ধী রুবেল’র দোকান ভাংচুর করে তছনছ করেন এবং অটোগাড়ীটি ভেঙ্গে খালে ফেলে দেন হামলাকারীরা।
এ ব্যাপারে পরাজিত মেম্বার প্রার্থী আজাদ ভুইয়া বলেন, বিজয়ী প্রার্থী’র নের্তৃত্বে বহিরাগতসহ ৪০-৫০ জন সন্ত্রাসীরা বিভিন্ন অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে বাহাদুরপুর বাজারে এ তান্ডবলীলা চালায়। এ ঘটনায় তাদের প্রায় ১৫ -২০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয় বলে দাবী করেন। এ ব্যাপারে বিজয়ী প্রার্থী আমীর জমাদ্দার বলেন, ঘটনার দিন ওরা আগে আমার এক কর্মীকে মারধর করেছিলো, তাদের হামলায় আমি নিজেই আহত হয়ে ভোলা মেডিকেলে ভর্তি আছি। তিনি আরো বলেন ভোটের আগেরদিন রাতে আমার কর্মী সমর্থকদের মোটর সাইকেল ভাঙ্গচুরের ঘটনার কারনেই আমার লোকজন এই হামলা করে। ওই ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দীন আহমেদ বলেন, হামলার ঘটনাটি দুঃখজনক, যেখানে কোন প্রকার সহিংসতা ছাড়াই সুষ্ঠু সুন্দর পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে সেখানে এ ধরনের সংঘাত কারো কাম্য নয়। মেহেন্দিগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম বলেন, সংঘর্ষের সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন, লিখিত অভিযোগ পেলে ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করা হবে। এছাড়াও ওই এলাকায় স্থানীয় এবং বহিরাগত সন্ত্রাসীদের চিহ্নিত করা হচ্ছে পর্যাক্রমে তাদের গ্রেফতার করা হবে। আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here