ইমোতে প্রেম, স্ত্রীর অধিকার পেতে থানায় তরুণী

ফেনী প্রতিনিধি:ইমোতে পরিচয়। এরপর প্রেম। বিয়ের আশ্বাসে করা হয় শারীরিক সম্পর্ক। শেষ পর্যন্ত বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানান প্রেমিক। কোনো উপায় না পেয়ে স্ত্রীর অধিকার পেতে থানায় হাজির হন প্রেমিকা।

শনিবার রাতে ফেনীর ছাগলনাইয়া থানায় এমনই একটি মামলা করেন ভুক্তভোগী তরুণী। অভিযুক্তের নাম রফিকুল ইসলাম রকি। তিনি ছাগলনাইয়া উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের ছয়ঘরিয়া গ্রামের রুহুল আমিনের ছেলে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ইমোর মাধ্যমে রকির সঙ্গে ওই তরুণীর পরিচয় হয়। ধীরে ধীরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২ মে ছাগলনাইয়ার একটি বাসায় নিয়ে তাকে শারীরিক সম্পর্কে বাধ্য করেন রকি। পরদিন বিয়ে করার কথা বললে রকি অস্বীকৃতি জানান।

স্বজনদের মাধ্যমে রকির পরিবারকে বিয়ের জন্য চাপ দিলেও কোনো সমাধান পাননি। তাই বাধ্য হয়ে মামলা করেন তিনি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রফিকুল ইসলাম রকির স্বজনরা জানান, এর আগেও ওই তরুণী ও তার স্বজনরা বিয়ে উপযুক্ত মেয়েদের দিয়ে বিভিন্ন ছেলেকে কৌশলে আটকে টাকা-পয়সা হাতিয়ে নিয়েছেন। এখন তারা ইমোতে কথা বলার জের ধরে রকির বিরুদ্ধে নানা রটনা প্রচার করছেন। এসব অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট।

ছাগলনাইয়া থানার ওসি মো. শহীদুল ইসলাম জানান, ধর্ষণ ও প্রতারণার অভিযোগে থানায় মামলা করেছেন ভুক্তভোগী তরুণী। মামলার আসামি আজম বাদশা একটি মামলায় কারাগারে রয়েছেন। প্রধান আসামি রফিকুল ইসলাম রকিকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here