পদ হীন এক ছাত্র রাজনীতিক যোগ্যতাই যার চরম শত্রু

আসাদুজ্জামান,বরিশাল :বড় রাজনৈতিক দলের মুল সংগঠন. অঙ্গ ও সহোযোগী সংগঠন. উপ সংগঠন সহ প্রায় ২০ টি সংগঠন রয়েছে।
রাজপথে যারা দলীয় কাজ করেন তারাই ঐ সকল কমিটি গুলোতে স্থান পেয়ে থাকেন। ব্যাক্তির কর্ম দক্ষতা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে তা নিরুপন করা হয়। আবার অনেক সময় পরশ্রীকাতরতায় অযোগ্যরাও অধিষ্ঠ হয়ে থাকেন উচ্চ পদে । এগুলো সিদ্ধান্ত নেন রাজনীতির উপর মহলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। তবে পাত্র নির্বাচনে ভুল হলে সংগঠন দুর্বল ও ক্ষতিগ্রস্থ হয়। আবার সঠিক নেতৃত্ব বাছাই করতে পারলে সংগঠন শক্তিশালী হয়. সমাজ ও রাস্ট্র উপকৃত হয়। এমনটাই হতে হয় রাজনীতিতে। যোগ্যদের মুল্যায়ন না করলে রাজনীতির প্রতি তরুন প্রজন্ম আগ্রহ হারাবে। তৈল মর্দন করে পদ পদবী পেলে সংগঠনের জন্য কেউ কাজ না করে আগামীর পদ প্রত্যাসীরা সবাই তেল নিয়ে ব্যাস্ত থাকবে
বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি হয়েছিলো ২০১১ সালে। বাপক তেল দেয়ার যোগ্যতায় সভাপতি হন মাদরাসা পড়ুয়া ছাত্র মো জসিম উদ্দিন ও সাধারন সম্পাদক হয়েছিলেন অসিম দেওয়ান। নিজেরা বিপুল সম্পদের মালিক হয়ে একাধিক নারী কেলেঙ্কারী করে নিজকে ও নগর ছাত্রলীগকে ভু লুন্ঠিত করেছে। তারা যখন হরিলুট ও নারী নিয়ে মনোরঞ্জনে ব্যাস্ত তখন নগরীর কাউনিয়ার বাসিন্দা বিএম কলেজ ছাত্র রইচ আহম্মেদ মান্না বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগকে শক্তিশালী করার জন্য হাটে মাঠে ঘাটে ও স্কুে কলেজ মাদ্রাসায় গিয়ে ছাত্রদেরকে বঙ্গবন্ধুর অদর্শ ও দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার উনয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরে ছাত্রলীগ করতে ছাত্রদেরকে উদ্বুদ্ধ করতেন। গোটা নগরীতে তরুন প্রজন্মের হাজার হাজার ছাত্রদেরকে ছাত্রলীগ কর্মি বানিয়েছেন। বরিশালে রাজনৈতিক যে কোন কর্মসুচীতে রইচ আহম্মেদ মান্নার ডাকে সব কয়টি ওয়ার্ড ও স্কুল কলেজ থেকে হাজার হাজার ছাত্রলীগ কর্মি বেড় হয়ে আসে । আন্দোলন সংগ্রামে বরিশালের রাজপদ কাাপানো এই ছাত্রলীগ নেতার ভাগ্যে আজো ছাত্রলীগ বা সহযোগী সংগঠনের কোন পদ পদবী জোটেনি। তবে রইচ আহম্মেদ মান্নাকে বলা হয় বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগের অন্যতম নেতা বা সংগঠক। শুধু তাই নয় সামাজিক কাজে তার অগ্রনি ভুমিকা প্রসংশনীয়। তাই যে কোন কমিটির যথার্থ স্থানে মুল্যায়ন হওয়া উচিত। শ্রমিকলীগের কমিটিতে মুল্যায়নের কথা শুনা যাচ্ছে।
পদহীন এই ছাত্রনেতার এসকল যোগ্যতাই তাকে কতিপয় নিজ ঘরানার পদ পদবী ওয়ালা রাজনীতিক ও প্রতিপক্ষ রাজনীতিকদের চরম ইর্শন্বিত করেছে। বর্তমানে বরিশাল ল কলেজের ছাত্র রইচ আহম্মেদ মান্নাকে কাবু করতে এ ক্ষেত্রে ইর্শা পরায়ন ব্যাক্তিরা তাদের নিজ মালিকানাধীন পত্রিকায় একাধিক বনোয়াট তথ্য সম্বলিত সংবাদ প্রচার করতেও কুন্ঠাবোধ করেন নি। প্রশাসনের ও রাজনৈতিক উপর মহলেও পদের বরাত দিয়ে কুৎসা রটনায় ব্যাস্ত ছিলেন প্রতিপক্ষরা। এখনও আছেন। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মুল ধারার রাজনীতিক বরিশাল সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক গত ৪০ বছরের বরিশালের শ্রেষ্ঠ আওয়ামী সংগঠক সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুলাহর স্নেহাসপদ রইচ আহম্মেদ মান্না। রানৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন. রাজনীতিতে দক্ষ ছাত্রলীগ নেতাদের বিলুপ্তি ঘটলে পিছিয়ে যাবে সংগঠন. পিছিয়ে যাবে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ. পিছিয়ে যাবে শেখ হাসিনা। তাই যোগ্য ও দক্ষ রাজনীতিকদের মুল্যায়নের যে নির্দেশনা আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা তার নেতাদের প্রতি দিয়েছেন তা বাস্তবায়ন হোক বাংলার সর্বোত্র।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here