রোজিনা ইসলামকে মুক্তি এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য সচিবের পদত্যাগ দাবি ন্যাপের

নিজস্ব প্রতিনিধিঃস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তার ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করেছে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ। একই সাথে স্বাস্থ্য মন্ত্রী- সচিবের পদত্যাগ চাওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে দলটির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি এবং মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এই দাবি করেন।

বিবৃতিতে তারা বলেন,রোজিনা ইসলাম। বাংলাদেশের একজন সাহসী এবং জনপ্রিয় সাংবাদিক, যিনি বিভিন্ন অনুসন্ধানী রিপোর্ট করে ইতিমধ্যে বাংলাদেশের গণমানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। সচিবালয়ের মতো একটি সুরক্ষিত জায়গায় একজন নারী সাংবাদিককে এভাবে ৫ ঘন্টা বন্দি রেখে নির্যাতনের ঘটনা একটা লজ্জাজনক অধ্যায় এবং মধ্যযুগীয় বর্বরতার শামিল।এ ঘটনা স্বাধীন গণমাধ্যমের ইতিহাসে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায়। অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি চাই এবং দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হওয়া এই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এবং সচিবের পদত্যাগ দাবি করছি।

নেতৃত্বদয় বলেন,সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের সঙ্গে মধ্যযুগীয় বর্বর আচরণ করা হয়েছে তা ন্যাক্কারজনক। এ ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন, ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত। স্বাধীন ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা এবং মুক্ত গণমাধ্যমের প্রতি ধারাবাহিক আক্রোশেরই প্রতিফলন।

তারা বলেন,মন্ত্রনালয়ের অভ্যন্তরে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত প্রয়োজন।বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে জনগণের তথ্য পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করতে রোজিনা ইসলাম কাজ করছেন। তিনি তাঁর প্রতিবেদনে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়ম তুলে এনেছেন।

এ ছাড়া করোনাকালীন সময়ে জনগণের স্বাস্থ্য অধিকার রক্ষায় মন্ত্রণালয়ের দূর্বলতাগুলোও তাঁর প্রতিবেদনে পরিষ্কারভাবে উঠে এসেছে। এসব প্রতিবেদন নিঃসন্দেহে স্বাস্থ্যখাতে সুশাসন ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। এমন একজন সাংবাদিককে পেশাগত কাজের সময় এভাবে আটক করা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। রোজিনাকে আটকের এ ঘটনা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে একটি অত্যন্ত বাজে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে, যা কোনোভাবেই প্রত্যাশিত নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here