‘সহিংসতা সৃষ্টির নেপথ্যে মামুনুল হক’

নিজস্ব প্রতিনিধিঃহেফাজতের হরতালের সময় নারায়ণগঞ্জে ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও নাশকতার একটি মামলায় তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় গ্রেপ্তার মো. আবু বক্কর সিদ্দিক। হেফাজতের এই সদস্য আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন। তাতে সংগঠনটির সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকসহ উল্লেখযোগ্য কেন্দ্রীয় নেতার নাম উঠে এসেছে।

মঙ্গলবার (৪ মে) বিকেলে জ্যেষ্ঠ বিচারিক আহমেদ হুমায়ূন কবীরের আদালতে হরতালে সহিংসতায় জড়িত থাকার দোষ স্বীকার করেন আবু বক্কর সিদ্দিক। সোমবার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

গ্রেপ্তারকৃত মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক (২৮) সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজির উত্তর পাড়া বায়তুল নাজাত জামে মসজিদের ইমাম ও হেফাজতের সিদ্ধির থানা কমিটির সক্রিয় সদস্য।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই’র পুলিশ পরিদর্শক আরিফুর রহমান জানান, আবু বক্কর সিদ্দিককে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় গ্রেপ্তার করা হয়। বিকেলে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন। জবানবন্দীতে তিনি জড়িত থাকার বর্ণনা দিয়েছেন। তার বর্ণনায় হেফাজত ইসলামের সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক সহ উল্লেখযোগ্য কেন্দ্রীয় নেতাদের নাম প্রকাশ করেন।

এছাড়া বর্ণনায় তিনি আরও উল্লেখ করেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানার হেফাজত ইসলামের সভাপতি মাওলানা মাহমুদুল হাসান পাটোয়ারি হরতাল সফল করার উদ্দেশ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে তার নেতৃত্বে অবস্থান, তাকে জ্বালাও পোড়াওসহ গাড়ি ভাংচুরের দায়িত্ব দেয়।

এ ঘটনায় সম্পৃক্ত অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলমান রয়েছে বলে জানান পুলিশ পরিদর্শক আরিফুর রহমান।

পিবিআই নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম জানান, ১৫ এপ্রিল পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের নির্দেশে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় পুলিশের করা একটি মামলার দায়িত্ব নেয় পিবিআই। মামলাটি অধিক গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করছে এ সংস্থা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here