লকডাউনে গণপরিবহনে দৈনিক ক্ষতি ৫০০ কোটি !

মো. ইলিয়াস: করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় ১৪ এপ্রিল থেকে কয়েক দফায় ৫ মে পর্যন্ত সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। সর্বাত্মক লকডাউনের পুরো সময় ধরে বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এর সাথে সংশ্লিষ্টরা। টাকার অঙ্কে প্রতিদিন ৫০০ কোটি ক্ষতি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তারা। এই ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা প্রায় অসম্ভব বলেও দাবি করছেন মালিকরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গণপরিবহনের সাথে প্রায় ৭০ লাখ মানুষ জড়িত। এরমধ্যে চালক, হেল্পার, সুপারভাইজারসহ অন্যান্য স্টাফ দৈনিক ভিত্তিতে কাজ করেন। অর্থাৎ কাজ করলে টাকা পান, কাজ না করলে টাকা পান না। আর লকডাউনে পরিবহন বন্ধ থাকায় কাজও বন্ধ। ফলে লাখ লাখ শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছেন। ফলে অনেকের দিন কাটছে খেয়ে না খেয়ে।

মালিকরা বলছেন, গত বছরের লকডাউনে দুই মাসের অধিক সময় পরিবহন বন্ধ থাকায় যে ক্ষতি হয়েছে তা এখনো কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি। এ বছরের লকডাউনে সেই ক্ষতি বেড়েছে কয়েকগুন।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, গত ১৪ তারিখ থেকে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় প্রতিদিন প্রায় ৫০০ কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে। আমাদের এই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বেশ বেগ পেতে হবে। তিনি বলেন, সরকারি সিদ্ধান্তের বাইরে তো আমরা যেতে পারি না। তাই ক্ষতি হলেও আমরা তা মেনে নিয়েছি।

তিনি বলেন, আমরা করোনার শুরু থেকেই চেষ্টা করেছি সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী সবধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিবহন চালাতে। এখনও চাই সব স্বাস্থ্যবিধি মেনেই পরিবহন চালাতে। সামনে ঈদ। এই ঈদের সময় মানুষ বাড়িতে যাবে। সব সময়ই ঈদের আগে আমাদের পরিবহনের বাড়তি চাপ থাকে। তাই এই সময়টায় পরিবহন বন্ধ থাকলে বাস মালিক ও শ্রমিক উভয়েরই ক্ষতি হবে। ইতিমধ্যে যে ক্ষতি হয়েছে তা কাটিয়ে ওঠা প্রায় অসম্ভব হবে। আরও বেশি দিন পরিবহন বন্ধ থাকলে ক্ষতি কাটানো যাবে না।

খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, সরকার যদি পরিবহন চলাচলের অনুমতি দেয় তাহলে আমাদের পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা যথাযথভাবে সরকারের দেওয়া নির্দেশনা মেনেই গাড়ি চালাবো। আমাদের মালিক সমিতির পক্ষ থেকেও তেমন নির্দেশনা দেওয়া হবে। অর্থাৎ আমরা সরকারের নির্দেশের বাইরে যাবো না।
এদিকে রবিবার (২ মে) গণপরিবহন চালুসহ তিন দফা দাবিতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন বাস টার্মিনালে বিক্ষোভ মিছিল করছেন পরিবহন শ্রমিকরা। এ সময় শ্রমিকরা বিভিন্ন দাবি সম্বলিত ব্যানার-ফেস্টুন হাতে নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল অংশ নেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here