সোনারগাঁয়ের সেই ওসি রফিকুল এবার অবসরে

নিজস্ব প্রতিনিধিঃনারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলামকে আগাম অবসরে পাঠিয়েছে সরকার। সোমবার (১৯ এপ্রিল) বিকেলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনে এ সিদ্ধান্ত জানানো হয়।

হেফাজত নেতা মামুনুল হকের রিসোর্ট-কাণ্ডের পর প্রথ‌মে ওসি রফিকুলকে বদলী করা আনা হয় পু‌লিন্স লাই‌ন্সে। এর দুই সপ্তা‌হের ম‌ধ্যে অবসরে পাঠানো হলো তাকে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, রফিকুলের চাকরির মেয়াদ ২৫ বছর পূর্ণ হওয়ায় সরকারি চাকরি আইন, ২০১৮ এর ৪৫ ধারা অনুযায়ী তাকে অবসরে পাঠিয়েছে সরকার।

বিধি মোতাবেক অবসরজনিত সকল সুবিধা পাবেন বলেও মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ধনঞ্জয় কুমার দাসের সই করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৩ এপ্রিল হেফাজতে ইসলামের নেতা মামুনুল হক সোনারগাঁয়ের রয়েল রিসোর্টে কথিত স্ত্রীসহ অবরুদ্ধ হওয়ার সময় সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) দায়িত্বে ছিলেন রফিকুল ইসলাম।

হেফাজত নেতার অবরুদ্ধের পর তার দলের নেতা-কর্মীরা একযোগে হামলা করেন রিসোর্টে। স্থাপনাটিতে ব্যাপক ভাঙচুর করে মামুনুলকে ছিনিয়ে নেয়ার পাশাপাশি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে ব্যাপক গাড়ি ভাঙচুর করেন তারা। একই সম‌য়ে ক্ষমতাসীন দল ও তার সহযোগী সংগঠনের স্থানীয় কার্যালয়েও হামলা হয়।

পরে পুলিশের উপস্থিতিতেই রিসোর্টে হামলা চালিয়ে মামুনুল হককে ছাড়িয়ে নিয়ে যান হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীরা। এ ঘটনার পরের দিন (৪ এপ্রিল) সোনারগাঁ থানার ওসি রফিকুলকে বদলি করে পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) হিসেবে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ লাইনসে যুক্ত করা হয়।

হেফাজতের এমন তাণ্ডবের বিরুদ্ধে পুলিশের পদক্ষেপ নি‌য়ে প্রশ্ন তোলেন অনেকে। ত‌বে, ওই ঘটনার পর পুলিশ বাদী হয়ে দুটি ও ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিরা বাদী হয়ে পাঁচটি মামলা করেন। সাত মামলায় ৪৪৬ জনের নাম উল্লেখ করে এক হাজার ৮০০ জনকে আসামি করা হয়েছে। এদের মধ্যে এখন পর্যন্ত অর্ধশতাধীক আসামী গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here