বার কাউন্সিলের নির্বাচন স্থগিত

করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় দেশীয় আইজীবীদের নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। আগামী ২৫ মে এই নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা বেড়ে যাওয়ায় নির্বাচন স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয় আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

শনিবার (৩ মার্চ) বারের চেয়ারম্যান (অ্যাটর্নি জেনারেল) এএম আমিন উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের এক জরুরি সভায় উপস্থিত সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে সর্বসম্মতভাবে বার কাউন্সিল নির্বাচনের তফসিল আপাতত স্থগিত করা হয়েছে।

 

এছাড়া বার কাউন্সিলের সচিব জেলা ও দায়রা জজ মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, অনির্দিষ্টকালের জন্য নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

এর আগে গত ১৮ মার্চ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ভোট গ্রহণের জন্য আগামী ২৫ মে দিন নির্ধারণ করা হয়। এবারের নির্বাচনে সারাদেশের প্রায় অর্ধ লাখ আইনজীবী তিন বছরের জন্য ১৪ জন প্রতিনিধি নির্বাচন করবেন। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র দাখিল ২৮ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল, মনোনয়নপত্র বাছাই ১১ এপ্রিল ও প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৫ এপ্রিল ঘোষণা করা হয়েছিল। নিয়ম অনুসারে ১৪টি পদের মধ্যে আইনজীবীদের ভোটে সাধারণ আসনে সাত জন এবং আঞ্চলিকভাবে (গ্রুপ আসনে) সাত জন আইনজীবী বার কাউন্সিল পরিচালনার জন্য সদস্য নির্বাচিত হবেন। পরে নির্বাচিত ১৪ সদস্যের মধ্য থেকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা ও মতামতের ভিত্তিতে একজনকে ভাইস-চেয়ারম্যান করা হবে। আর পদাধিকার বলে সংস্থাটির চেয়ারম্যানের দায়িত্বপালন করেন অ্যাটর্নি জেনারেল। বাকি ১৪ জন সদস্য তিন বছরের জন্য নির্বাচিত হন। সারা দেশের সনদপ্রাপ্ত আইনজীবীদের ভোটে সাধারণ আসনে ৭জন ও দেশের ৭টি অঞ্চল থেকে বাকি ৭জন সদস্য নির্বাচিত হবেন। নির্বাচিত সদস্যরা তাদের মধ্য থেকে একজনকে ভাইস চেয়ারম্যান মনোনীত করবেন।

বার কাউন্সিলের বর্তমান কমিটির মেয়াদ আগামী জুনে শেষ হবে। এর আগেই নির্বাচন সম্পন্ন করার কথা ছিল। কিন্তু করোনা বেড়ে যাওয়ায় নির্বাচন স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সবশেষ ২০১৮ সালের অনুষ্ঠিত বার কাউন্সিল নির্বাচনে ১৪ সদস্যের নির্বাহী কমিটিতে সরকার সমর্থক বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের ১২টি পদে ও বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা দুটি পদে বিজয়ী হন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here