বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দেয়ার সময় সাংবাদিকদের ওপর হামলা

যশোর প্রতিনিধি:যশোরের চৌগাছায় মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্যে বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে চৌগাছা প্রেসক্লাবের সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ শ্রদ্ধা নিবেদনের সময় সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন। উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ও হত্যা মামলাসহ একাধিক মামলার আসামি জিয়াউর রহমান রিন্টুর নেতৃত্বে ১০-১২ জন সন্ত্রাসী এই হামলা চালায়। নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় ব্যাপক ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এস. এম হাবিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধুরী চৌগাছা প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দের সাথে বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে পুষ্পমাল্য অর্পণের জন্য ইচ্ছা পোষণ করলে নেতৃবৃন্দ ফুল দিতে শহীদ বেদীতে ওঠেন।

 

এমন সময় উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক ও প্রায় অর্ধ ডজন মামলার আসামি জিয়াউর রহমান রিন্টুর নেতৃত্বে অমেদুল ইসলামসহ ১০-১২ জন সন্ত্রাসী সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের ওপর হামলা চালান। এ সময় তারা ফুল ছিঁড়ে ফেলেন। এ সময় প্রেস ক্লাবের সভাপতি আলমগীর মতিন চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক শাহানুর আলম উজ্জ্বল আহত হন। আহতরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

আজ সকাল ৯টার দিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন যশোর-২ চৌগাছা-ঝিকরগাছা আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অব.) অধ্যাপক ডাক্তার নাছির উদ্দিন, উপজেলা চেয়ারম্যান ড. মোস্তানিছুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস.এম হাবিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক সাইফুর রহমান বাবুল, তবিবর রহমান খান, সদর ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজনীন নাহার পপিসহ উপজেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। ফুল দেয়া শেষে সংসদ সদস্য ঘটনাস্থল ত্যাগ করলে অন্যান্য নেতৃবৃন্দের সামনে এই হামলাটি ঘটে।

এক প্রতিক্রিয়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস. এম হাবিবুর রহমান জানান, চৌগাছা উপজেলায় আওয়ামী লীগের নাম ভাঙিয়ে যারা বঙ্গবন্ধু ম্যুারালে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়েছেন তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। এদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধুরী জানান, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক রিন্টুর নেতৃত্বে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা শুধু সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের ওপরই হামলা চালায়নি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুারালকেও কলঙ্কিত করেছে তারা।

অপরদিক এ ঘটনার পর প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ এক জরুরি সভার আয়োজন করেন। প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি ইয়াকুব আলীর সভাপতিত্বে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন হামলায় আহত প্রেস ক্লাবের সভাপতি আলমগীর মতিন চৌধুরী , সাধারণ সম্পাদক শাহানুর আলম উজ্জ্বল, যুগ্ম সম্পাদক এক এম আল-মামুন শাহীন, সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক কবিরুল ইসলাম, সমাজ সেবা ও প্রচার সম্পাদক বাবলুর রহমান, নির্বাহী সদস্য শিহাব উদ্দীন, রেজাউল করিম সাগরসহ প্রেসক্লাব ও রিপোর্টার্স ক্লাবের নেতৃবৃন্দ।

এ সময় প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সম্পাদক জানান, যারা সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের ওপর হামলা চালিয়েছে ও বঙ্গবন্ধু ম্যুরালকে অপমানিত করেছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে। ইতোমধ্যে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এ বিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম জানান, বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে বলে আমি শুনেছি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here