গরমে পুড়ছে দেশ, দেখা নেই বৃষ্টির

নিজস্ব প্রতিনিধিঃগরমে পুড়ছে দেশ। কোথাও বৃষ্টির দেখা নেই। তাপমাত্রা প্রতিদিনই ঊর্ধ্বমুখী। দিনের উত্তপ্ত প্রকৃতি রাতেও ঠাণ্ডা হয় না। কালবৈশাখীর এ সময়েও নেই জোর বাতাস। পুকুর-জলাশয়, বিল-ঝিলের পানি শুকিয়ে যাচ্ছে। টিউবওয়েলে পানি উঠছে না বিভিন্ন এলাকায়। প্রচণ্ড গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন। এই অবস্থায় বেশি ভোগান্তিতে পড়েছে শিশু ও বৃদ্ধরা। ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি তাপমাত্রা উঠে যাচ্ছে। মঙ্গলবার ৩৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। যা মৌসুমের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।

টানা গরমে বাড়ছে রোগব্যাধি। শহর থেকে গ্রাম, কোথাও স্বস্তি নেই। করোনার সংক্রমণও রয়েছে সঙ্গে। একই সাথে চলছে ঠাণ্ডা-কাশি, সর্দি-জ্বর এবং ডায়রিয়া। পানির প্রাপ্তি হ্রাস পাওয়ায় মানুষের শুরু হয়েছে জণ্ডিসের প্রাদুর্ভাব। চিকিৎসকদের পরামর্শ, প্রয়োজন না হলে রোদের মধ্যে ঘোরাফিরা না করতে। কারণ পানিশূন্যতা দেখা দিয়ে হিটস্ট্রোক হয়ে যেতে পারে। বিশেষ করে বয়স্কদের প্রয়োজন না হলে ঘরেই অবস্থান করার পরামর্শ দিয়েছেন।

আবহাওয়া অফিস চলতি মাসে দিনের তাপমাত্রা স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে একটু বেশি বৃদ্ধি পাওয়ার পূর্বাভাস দিয়ে রেখেছে মাসের শুরু থেকেই। দেশের পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিম অঞ্চল মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ চলার পূর্বাভাস ছিল। কার্যত শুধু পশ্চিম অথবা উত্তর-পশ্চিম অঞ্চল নয়, দেশের প্রায় প্রতিটি অঞ্চলেই মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ চলছে গত দু’দিন থেকে। কালবৈশাখী ঝড়ের পূর্বাভাস থাকলেও এখনো বড় ধরনের কোনো ঝড় হয়নি।

বুধবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়া বার্তায় বলা হয়েছে, খুলনা, রাজশাহী ও বরিশাল বিভাগসহ ঢাকা, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, রাঙ্গামাটি, নোয়াখালী, চাঁদপুর, ফেনী, নীলফামারী ও সিলেট অঞ্চলসমূহের ওপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং আজো তা কিছু কিছু এলাকা থেকে প্রশমিত হতে পারে।

এ সময়ে আকাশ অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলাসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। এছাড়া সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

সিনপটিক অবস্থা: লঘুচাপের বর্ধিতাংশ বাংলাদেশ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here