পটুয়াখালীতে ভোট কেন্দ্র বহালের দাবীতে আ’লীগ বিএনপির যৌথ মানববন্ধন

সাঈদ ইব্রাহিম,পটুয়াখালীঃপটুয়াখালীর বাউফলে প্রথম ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে একটি ভোট কেন্দ্র বহাল রাখার দাবীতে দুটি গ্রামের মানুষ একত্রিত হয়ে মানববন্ধন করেছে। শনিবার বেলা ১১টায় উপজেলার উত্তর নারায়নপাশা ৪৮ নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। ঘন্টাব্যাপী এ মানবন্ধনে শহস্রাধীক আবালবৃদ্ধবনিতা অংশ গ্রহন করে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, কনকদিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি সারোয়ার জাহাঙ্গীর এবং একই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও সাবেক ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি মিজানুর রহমান হিরণের নের্তৃত্বে পাঁচশতাধিক ভোটার ভোট কেন্দ্রের সামনে মানববন্ধনে অংশ গ্রহন করে। ঘন্টাব্যাপী মানব বন্ধনে গোলাম সারোয়ার জাহাঙ্গীরের সভাপতিত্বে বক্তারা বলেন, ভোট কেন্দ্রটি স্থানান্তর না করলে ১১ এপ্রিল নির্বাচন বর্জন করবে অত্র এলাকার জনগন। ব্রিটিশ আমল থেকে শুরু করে পাকিস্তান ও স্বাধীনতা পরবর্তী এ গ্রামের মানুষ নারায়নপাশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে তাদের নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করে জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করে আসছে। এলাকাটিতে প্রায় ২২শ ভোটার রয়েছে। কিন্তু স্বার্থান্বেষি মহলের স্বার্থ হাসিলের জন্যে সম্প্রতি ভোট কেন্দ্রটি কেটে পাশেই কুম্ভখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্থানান্তর করে নিয়েছে। উল্লেখ্য ১৬ মার্চ কনকদিয়া বিএনপির সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান ভোট কেন্দ্র পুণ: স্থানান্তর করার জন্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বরাবরে একটি লিখিত আবেদন করেন। কনকদিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার জাহাঙ্গীর বলেন, তার দল নির্বাচন করবেনা, তাই তিনি নির্বাচন করবেননা। তবে এলাকাবাসীর স্বার্থে ভোট কেন্দ্রটি বহাল চান। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান হিরোন বলেন, ভোট কেন্দ্রটি তার বাড়ির দক্ষিণ পাশে এবং জনসাধারণের চলাচলে সুবিধা বেশি। বিদ্রোহী প্রার্থীর বিষয়ে তিনি বলেন, দল তাকে মনোনয়ন দেয়নি তবে জণগণের সমর্থন নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। বাউফল উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ সেলিম রেজা বলেন, ৪৮ নং নারায়ন পাশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি তিন রুম বিশিষ্ট বিদ্যালয়টি একটি জনবসতিহীন এলাকার পুকুর পাড়ে অবস্থিত। যানবাহন চলাচলে মারাত্মক সমস্যা থাকায় জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এ ভোট কেন্দ্রটি স্থানান্তর করেছেন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here