জিন তাড়ানোর নামে ধর্ষণ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃকুমিল্লার চান্দিনায় জিন তাড়ানোর কথা বলে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে মো. শাহপরান নামে এক মাদ্রাসাশিক্ষকের বিরুদ্ধে। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে শুক্রবার বিকালে পাঠানো হয়েছে কুমিল্লা কারাগারে। শাহপরান উপজেলার মো. সুন্দর আলীর ছেলে। শাহপরান উপজেলার হারং গ্রামের উত্তরপাড়া এলাকার আল-করিম মাদ্রাসার শিক্ষক।

এদিকে জয়পুরহাটে সুপারি দেওয়ার কথা বলে প্রতিবন্ধী কিশোরীকে এবং গাজীপুরের কালিয়াকৈরে স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কুমিল্লা: নির্যাতনের শিকার কলেজছাত্রীর পরিবারের বরাত দিয়ে চান্দিনা থানার ওসি শামস্উদ্দিন মোহাম্মদ ইলিয়াছ জানান, ওই কলেজছাত্রী কয়েক দিন ধরে পেটব্যথায় ভুগছিলেন। গ্রামের অনেকে তার ওপর বদ জিনের আছর পড়েছে বলে মত দেন। পরে জিন তাড়াতে পরিবার তাকে মাদ্রাসাশিক্ষক শাহপরানের কাছে নিয়ে যান। ওই ছাত্রী গত ১৪ ফেব্রুয়ারি প্রথমবার পানি পড়া আনতে ওই শিক্ষকের কাছে যান। এভাবে দু-তিন দিন তাকে পানি পড়া দেন ওই শিক্ষক। সর্বশেষ গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সকালে মাদ্রাসায় গেলে জিন চালান দেওয়ার কথা বলে ওই ছাত্রীকে মাদ্রাসার অফিসকক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করেন শাহপরান।

এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার ওই ছাত্রী থানায় মামলা করে। ওই মামলায় শাহপরানকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।

জয়পুরহাট: সুপারি দেওয়ার কথা বলে মানসিক ও শারীরিক প্রতিবন্ধী এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে একই এলাকার পল্লী চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। স্বজন, প্রতিবেশী ও স্থানীয় নারী নেত্রীরা দ্রুত এ ঘটনার বিচার দাবি করেছেন। পুলিশ বলছে, প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের সত্যতা পাওয়ায় মামলা গ্রহণ ও অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে পাঁচবিবি উপজেলার রামভদ্রপুর গ্রামের একটি সুপারি বাগানে বাগজানা প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এক মানসিক ও শারীরিক প্রতিবন্ধী কিশোরী ৩ শিশুর সঙ্গে সুপারি কুড়াচ্ছিল।

এ সময় স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক রুহুল আমিন টুটুল তাকে সুপারি দেওয়ার কথা বলে নির্জন বাড়িতে ডেকে নেন। পরে তাকে ধর্ষণ শেষে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। মেয়েটি তার মা-বাবাকে ঘটনা জানায়। পরে তার বাবা পাঁচবিবি থানায় মামলা করেন। এর পরই পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে। গতকাল দুপুরে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

গাজীপুর:কালিয়াকৈর উপজেলার উত্তর গজারিয়া এলাকায় স্বামীকে ঘরে আটক রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। বাদী নির্যাতনের শিকার নারী। পুলিশ গত শুক্রবার দুপুরে অভিযুক্ত দুজনকে গ্রেপ্তার করে। তারা হলেন- উপজেলার উত্তর গজারিয়া এলাকার সিরাজের ছেলে ফারুক ও একই এলাকার নারায়ণ চন্দ্র সরকারের ছেলে অপূর্ব কুমার দিপু।

পুলিশ সূত্রে জানা যায, দীর্ঘদিন আগে টাঙ্গাইল থেকে জীবিকার উদ্দেশ্যে কালিয়াকৈর উপজেলার উত্তর গজারিয়া এলাকায় রাম প্রসাদের বাড়ি ভাড়া নিয়ে বসবাস করছিলেন ওই দম্পতি। স্বামী রাজমিস্ত্রি। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় ফারুক, আলমগীর, সাব্বির, রূপকুমার, সুজন, অপূর্বসহ কয়েকজন মিলে রাম প্রসাদের বাসায় গিয়ে স্বামীকে একটি কক্ষে নিয়ে আটকে রাখেন। স্ত্রীকে পাশের কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করেন ফারুক। শুক্রবার দুপুরে পুলিশ দুজনকে গ্রেপ্তার করে। গতকাল তাদের জেলহাজতে পাঠানো হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here