মাস্ক ছাড়া শহীদ মিনারে প্রবেশ নয়: ঢাবি উপাচার্য

নিজস্ব প্রতিনিধিঃঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেছেন, এবারের অমর একুশে উদযাপনে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা, সার্বক্ষণিক মাস্ক পরিধান এবং হাত ধোয়া; এ তিনটি বিষয় গুরুত্বের সাথে নিতে হবে। যেহেতু আমরা একটি মহামারির মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। তাই এসব বিষয় আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) বিকেল ৩টায় উপাচার্য অফিস সংলগ্ন অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

 

এতে আরও উপস্থিত ছিলেন অমর একুশে উদযাপন কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটির যুগ্ম-সমন্বয়কারী ও শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. সাবিতা রিজওয়ানা রহমান, যুগ্ম-সমন্বয়কারী ও শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূইয়া, সদস্য-সচিব ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী এবং প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ।

ঢাবি উপাচার্য বলেন, মাস্ক ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ও শহীদ মিনারে কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। শহীদ মিনারের সব প্রবেশ মুখে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন ও তরল সাবান রাখা হবে। মাস্ক এবং হাত ধোয়ার বিষয়গুলো সবাইকে নিশ্চিত করতে হবে। এসব বিষয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ ঢাকার বিভিন্ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যারা রোভার স্কাউট এবং বিএনসিসির সঙ্গে জড়িত তারা দেখভাল করবেন।

উপাচার্য আরও জানান, প্রতিবারের মতো আমরা একটি রোডম্যাপ নির্ধারণ করে দেব। তাছাড়া পলাশী মোড় থেকে শহীদ মিনার খুবই গুরুত্বপূর্ণ এলাকা। এখানে স্ট্যান্ডিং পয়েন্ট থাকবে, রেড মার্ক থাকবে। অন্তত ৩ ফুট দূরত্বে অবস্থান করতে হবে। আর আমরা আগেই জানিয়েছি প্রতিষ্ঠান এবং সংগঠনের সর্বোচ্চ ৫ জন এবং ব্যক্তি পর্যায়ে সর্বোচ্চ দুইজন মূল বেদীতে প্রবেশ করতে পারবেন।

সভায় উপাচার্য যথাযোগ্য মর্যাদায় সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খলভাবে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেন। পাশাপাশি একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপনে গৃহীত কর্মসূচি সুষ্ঠু ও সুশৃঙ্খলভাবে বাস্তবায়নে নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনের জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

করোনার কারণে এবছর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিতে আসবেন না রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। রাষ্ট্রপতির পক্ষ থেকে ফুল দেবেন তার সামরিক সচিব। বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২১ উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ও ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here