মাধবপাশা ইউনিয়নে নৌকার কান্ডারী হতে চান ত্যাগী নেতা জুয়েল তালুকদার

 

বাবুগঞ্জ প্রতিনিধি:বাবুগঞ্জ উপজেলার আসন্ন মাধবপাশা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে চেয়ে আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ গ্রহনকারী মোঃ হাছান আলী তালুকদারের পুত্র মোঃ জসিম উদ্দিন তালুকদার জুয়েল। নির্বাচন কে সামনে রেখে ইতিমধ্যে তিনি বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও বিভিন্ন দিবসকে কেন্দ্রকরে নির্বাচনী এলাকায় আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের বিভিন্ন দিক জনগণের কাছে তুলে ধরছেন। সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড জনগনের কাছে তুলে ধরার পাশাপাশি উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি মাধবপাশা ইউনিয়নের মানুষের সেবা করার জন্য দিনরাত মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী জসিম উদ্দিন জুয়েল তালুকদার বলেন,আমার বাবা মোঃ হাছান আলী তালুকদার উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন। আমার বাবা আওয়ামীলীগের একজন দক্ষ সংগঠক ছিলেন। দীর্ঘ দিন ধরে আমি আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়তি। আমার পরিবারের সবাই আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে জড়তি থেকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কে সুসংগঠিত করছে। দলের দুঃসময় থেকে আমি ও আমার পরিবার আওয়ামী রাজনীতি করে আসছি। আমার মেঝ ভাই মোঃ শাহাবুদ্দিন তালুকদার সোহেল বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের যুগ্না আহব্বায়ক এবং সুপ্রিমকোটের এ্যাডভোকেট ও ছোট ভাই মোঃ নাজিম উদ্দিন মামুন মাধবপাশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য । দলের জন্য বিভিন্ন সময় আমার পরিবারের সবাই আন্দোলন সংগ্রাম করেছি। দলের তৃণমূলের ও জনগণের চাহিদা অনুযায়ী আগামী নির্বাচনে অংশ নিতে চাই। ইনশাআল্লাহ দল আমাকে মূল্যায়ন করলে আমি বিপুল ভোটে নির্বাচিত হব। নির্বাচিত হলে মাধবপাশা ইউনিয়নের উন্নয়নই হবে আমার মূল লক্ষ্য।
তিনি আরোও বলেন, স্কুল জীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়তি ছিলাম। ১৯৭৮ সালে সামরিক শাসন জিয়াউর রহমানের অবৈধ নির্বাচনে বরিশাল রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল বর্তমান ক্যাউট কলেজ কেন্দ্রে ফ্লাইট সার্জেন্ট ফজলুল হকের নির্দেশে প্রতিবাদ করি। এরশাদের সামরিক সরকারের এক দলীয় নির্বাচনে ১৯৮৫ সালে ৯ ই সেপ্টেম্বর কারা বন্দি হই। দীর্ঘ ৫ মাস পর কারা মুক্তি লাভ করি। জুয়েল আরো বলেন, ২০০১ সালে জাতীয় নির্বাচনের পর উপজেলা আওয়মী লীগের দীর্ঘ সময় ধরে সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করি এবং জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিষদের সদস্য পদ লাভ করি। বর্তমানে আমি উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষায়ক সম্পাদক ও উপজেলা রহমতপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লেখক সমিতির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। আমাকে যদি মনোনয়ন দেওয়া হয় তাহলে বঙ্গবন্ধু সোনার বাংলা বির্নিমানে ও শেখ হাসিনার উন্নয়ননের ধারা এরং দক্ষিন বাংলা রাজনৈতিক অভিভাবক আবুল হাসনাত আব্দুল্লার আদেশ-নির্দেশ ও দলের ভাবমূর্তি রক্ষা করবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here