স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সৎ, আইজিপি ক্লিন, বদলিতে নেই ওসি

নিজস্ব প্রতিনিধিঃকাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরায় ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামে প্রচারিত ও প্রকাশিত প্রতিবেদনে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদলিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্পৃক্ততার যে কথা বলা হয়েছে, তার প্রতিবাদ জানিয়েছে পুলিশ ইন্সপেক্টরদের সংগঠন বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন।

রবিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বি এম ফরমান আলী এবং সাধারণ সম্পাদক ও যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এক প্রতিবাদ জানানো হয়।

আল-জাজিরার প্রতিবেদনে উৎকোচের বিনিময়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপি ও ডিএমপি কমিশনার বদলির যে কথা বলা হয়েছে তার প্রতিবাদে বিবৃতিতে জানানো হয়, এটি মিথ্যা ও বাস্তবতা বিবর্জিত। বাংলাদেশ পুলিশের বর্তমান কর্মপদ্ধতি সম্পর্কে ওই ব্যক্তির কোনও ধারণাই নেই।

বিবৃতিতে পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন জানায়, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন একজন সৎ ও নির্ভীক মুক্তিযোদ্ধা এবং আদর্শ রাজনৈতিক ব্যক্তি হিসেবে সর্বমহলে সুপরিচিত। থানায় ওসি পদায়নের ক্ষেত্রে প্রশাসনিক কর্মপদ্ধতি অনুযায়ী তিনি কোনোভাবেই সম্পৃক্ত নন। সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য একজন সম্মানিত ব্যক্তি সম্পর্কে এ ধরনের বক্তব্য অনভিপ্রেত ও অনাকাঙ্ক্ষিত। আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ ক্লিন ইমেজের একজন চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে সর্বজনবিদিত। পুলিশ প্রধান হিসেবে তিনিও বাংলাদেশ পুলিশের প্রশাসনিক কর্মপদ্ধতি অনুযায়ী থানায় ওসি বদলি বা পদায়নের ক্ষেত্রে কোনোভাবেই সংশ্লিষ্ট নন।

বিবৃতিতে বলা হয়, এছাড়াও ডিএমপি পুলিশ কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম একজন স্বচ্ছ ও দক্ষ কর্মকর্তা হিসেবে পরিচিত। দক্ষতা, যোগ্যতা ও পেশাদারিত্বের মাপকাঠির ভিত্তিতে তিনি ওসি বদলি/পদায়ন করে থাকেন।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, আমরা মনে করি মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা হয়েছে এ প্রতিবেদন। কতিপয় স্বার্থান্বেষী মহল দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে। এ প্রতিবেদন ওই ধারাবাহিক প্রচেষ্টারই একটি অপপ্রয়াস মাত্র। প্রতিবেদনটি তৈরির কুশীলব ডেভিড বার্গম্যান, যিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকালে নানামুখী অপতৎপরতামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য বিতর্কিত, জুলকারনাইন সায়ের খান (সামি ছদ্মনামধারী) মাদকাসক্তির অপরাধে বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি থেকে বহিষ্কৃত একজন ক্যাডেট এবং তাসনিম খলিল অখ্যাত নেত্র নিউজ-এর প্রধান সম্পাদক, যিনি বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে বিতর্কিত ভূমিকার জন্য ব্যাপকভাবে সমালোচিত হয়েছেন। এসব বিতর্কিত ব্যক্তিবর্গ অনেক আগ থেকেই তাদের নিজেদের মধ্যে যোগসূত্র স্থাপন করে বাংলাদেশ বিরোধী কার্যক্রমে নিয়োজিত রয়েছেন।

বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন আল-জাজিরার প্রতিবেদনটি মিথ্যা ও বানোয়াট উল্লেখ করে বিবৃতিতে জানায়, এ প্রতিবেদনটি রাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বিভেদ ও দূরত্ব সৃষ্টির মাধ্যমে দেশের সমৃদ্ধি ও অগ্রগতির পথে বাধা সৃষ্টির একটি অপপ্রয়াস। বাংলাদেশ পুলিশের প্রতিটি সদস্য দেশের সংবিধান এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সর্বদাই অঙ্গীকারবদ্ধ। দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার মাধ্যমে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে বাংলাদেশ পুলিশ। এছাড়া সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশ পুলিশ এখন বিশ্বে রোল মডেল।

বাংলাদেশ যখন অপ্রতিরোধ্য গতিতে উন্নয়নের পথে ধাবমান ঠিক তখনই আল-জাজিরা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে দেশে একটি অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে রাজনৈতিক পক্ষপাতমূলক প্রতিবেদন প্রচার করেছে, যা অনাকাঙ্ক্ষিত ও বিভ্রান্তিমূলক বলে উল্লেখ করা হয় বিবৃতিতে।

উল্লেখ্য, গত ১ ফেব্রুয়ারি কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা টিভিতে “অল দ্য প্রাইম মিনিস্টার’র মেন” (ALL THE PRIME MINISTER’S MEN) শিরোনামে একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন সম্প্রচার হয়। বাংলাদেশ সরকার এক বিবৃতিতে প্রতিবেদনটিকে ‘ভিত্তিহীন ও অপপ্রচারমূলক’ দাবি করে প্রতিবাদ জানিয়েছে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিবৃতিতেও প্রতিবেদনটির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here