‘আমি প্রভাবশালী মন্ত্রী নই’- জাহিদ ফারুক শামীম

নিজস্ব প্রতিনিধিঃপানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম- এমপি বলেছেন, ‘আমি প্রভাবশালী মন্ত্রী নই, আমি মন্ত্রিসভার একজন সদস্য। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করি। তাছাড়া আমি কথায় নয়, কাজে বিশ্বাস করি।

শনিবার দুপুরে বরিশাল সদর উপজেলার চরবাড়িয়া ইউনিয়নের শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তৃতায় প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

এসময় তিনি আরও বলেন, ‘২০০৮ সালে আমি বরিশালে প্রথম নির্বাচন করি। সেসময় আমি মাত্র পাঁচ হাজার ভোটের ব্যবধানে হেরেছিলাম। সেটাও হয়তো দলীয় কোন কারণে, অনেকে পছন্দ করেনি আমাকে। তবে আমি কিন্তু হারিনি, আর এটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জানতেন। একারণে তিনি আবারও আমাকে মনোনয়ন দিয়েছেন, আর আপনাদের ভোটে নির্বাচিত হওয়ার পরে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োজিত করেছেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘মাত্র দুই বছর হয়েছে আমি সংসদ সদস্য হয়েছি। এর আগে কিন্তু গত ২০ বা ২৫ বছর যারা সংসদ সদস্য ছিলেন তারা আপনাদের এলাকার জন্য কি করেছেন। আপনারা আজ বলছেন, রাস্তাঘাট ভাঙা, রাস্তাঘাট নেই, মসজিদ-মাদ্রাসা নেই। ভোট দেওয়ার অধিকার আপনাদের। একবার ভোট দিলেন, কিন্তু সে কাজ না করে তাহলে তাকে দ্বিতীয়বার ভোট দেয়ার কথা না। কিন্তু আপনারা পর পর ভোট দিতে দিতে একাধারে চারবার সংসদ সদস্য করেছেন। এখন টিআর-কাবিখার টাকা যে কোথায় গেছে আল্লাহ জানে। বিগত ২০ বছর বিএনপি’র যিনি সংসদ সদস্য ছিলেন, তিনি কোন কাজই করেননি। যার জন্য আপনাদের এলাকায় কোন উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি।

এলাকার ভোটারদের উদ্দেশ্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমি আপনাদের আশ্বস্ত করতে চাই, আমি চুরি করিনা। আমি গম চুরি করিনা, টিআর-কাবিখার টাকা পকেটে ঢুকাই না। এগুলো যে কাজের জন্য দেওয়া হয় সে কাজেই ব্যবহার করি। আমি পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, আমার হাতে হাজার হাজার কোটি টাকার টেন্ডার প্রক্রিয়া হয়। কিন্তু কেউ বলতে পারবে না আমি কোন টেন্ডারবাজি করেছি বা কোথাও দিয়ে ঢাকা তছরুপ করেছি। কারণ আমি বিশ্বাস করি আমি মন্ত্রী হই আর যাই হই, মারা গেলে সাড়ে তিন হাত মাটির ভেতর থাকতে হবে। তাই এসসমস্ত চুরি-চামারি থেকে নিজেকে দূরে রাখার চেষ্টা করি।

তিনি বলেন, ‘আপনারা আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন। আপনাদের খেদমত করা আমার দায়িত্ব-কর্তব্য। এজন্যই আপনাদের সমস্যাগুলো আমার জানা আছে। এই সদর উপজেলার বিভিন্ন প্রকল্প নেওয়া আছে। যার মধ্যে ৬৪ রাস্তার প্রকল্প নেওয়া আছে। তালতলী বাজারে একটা মডেল মসজিদ করা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্বউদ্যোগে এটাসহ গোটা বাংলাদেশে ৪৬০টি মডেল মসজিদ বানানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

জাহিদ ফারুক শামীম বলেন, ‘আমার চিন্তা ধারা হলো জনগণের খেদমত করা। আমি চাই এমন লোক চেয়ারম্যান মেম্বার হোক যাদের দিয়ে সততার সহিত আপনাদের দেখমত করাতে পারবো। আপনারা যদি চান এলাকার উন্নতি হোক, এলাকার পরিবেশটা ভালো থাকুক, তাহলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি যে ব্যক্তির জন্য আবেদন জানানো এবং প্রধানমন্ত্রী যদি তাকে মনোনয়ন দিয়ে দেন তাহলে তাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন।

শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহমুদুল হক খান মামুন, জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি জোয়ের আবদুল্লাহ জিন্নাহ, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন, চরবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শহীদ প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here