বাউফলে নারীর মামলায় সামাজিক বিপর্যস্ত বজলুর

এম মনিরুজ্জামান হিরোন,বাউফলঃ পটুয়াখালীর বাউফলে মিথ্যা মামলায় দীর্ঘ ৬ মাস ১৯ দিনের মাথায় জামিন মিললেও জীবনের হিসেব মিলছেনা বজলুর রহমানের (৫০)। প্রতিবেশি এক নারীর দেওয়া শিশু ও নারী নির্যাতন মামলায় সামাজিক ও অর্থনৈতিক বিপর্যস্ত হয়ে বাউফল পৌর শহরের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নিজ বাসায় লোকচক্ষুর আড়ালে গৃহবন্ধি জীবন যাপন করছে। সামাজিক মর্যাদা আর অর্থনৈতিক নি:স্ব প্রায় বজলুর রহমান জানান, ছেলে-মেয়ের উচ্চ শিক্ষা আর পারিবারিক স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্নে পৈত্রিক সম্পত্তি বিক্রি দিয়ে এক যুগের মতো সময় বিদেশে কাটান তিনি। দেশে ফিরে পৌর শহরের হাচন দালাল মার্কেটে দোকান দিয়ে শুরু করেন তিনি গার্মেন্ট পোশাক বিক্রির কাজ। একমাত্র মেয়েকে উচ্চ শিক্ষিত সহ ছেলেকে পেশায় উকিল বানাবেন আশায় বুক বাধলেও তছনছ হয়ে যায় প্রতিবেশি পঞ্চী বেগম নামে এক নারীর শিশু ও নারী নির্যাতন মামলায়। প্রতিবন্ধি মেয়ে লিজা বেগমের সম্ভবা সন্তানের পিতৃত্বের দাবী তুলে ২০২০ সালের ১৪ আগষ্ট তাকে আসামী করে এক মামলা করেন পঞ্চি বেগম। মামলায় অভিযোগ করা হয় খাবারের প্রলোভনে বজলুর রহমান ধর্ষণে অন্ত:সত্ত হয় মেয়ে প্রতিবন্ধি লিজা। এরপর পুলিশ ওই মামলায় পৌর সদরের গার্মেন্ট পোশাকের দোকান থেকে গ্রেফতার করে কোর্টে সোপর্দ করেন মৃত আব্দুর রহমান হাওলাদারের ছেলে বজলুর রহমানকে। এরই প্রায় ৭ মাস পরে প্রতিবন্দি লিজা এক কন্যা সন্তানের জন্ম দিলে স্থানীয় সালিশ বৈঠকেও সুরাহা মেলেনি তার। জামিন মেলেনি আদালতে আবেদন করেও। তবে বজলুর রহমান লিজা বেগমের গর্ভজাত নবজাতক কন্যা সন্তানের জৈবিক পিতা নন সুদৃঢ় ভাবে প্রমানিত উল্লেখ করে ঢাকার ফরেনসিক ডিএনএ ল্যাবরেটরি টেস্টের পরীক্ষক বিশ্বজিৎ চন্দ্র রায়ের দেয়া পরীক্ষা প্রতিবেদনের পরে ছয় মাস ১৯ দিনের মাথায় জামিনে মুক্তি মেলে তার। ভেজা চোখে কান্না জড়ানো কন্ঠে বজলুর রহমান প্রতিবেদককে বলেন, ‘মিথ্যা ও বানোয়াট মামলায় সামাজিক ও অর্থনৈতিক ভাবে আমাকে পঙ্গু করা হয়েছে, করা হয়েছে গৃহবন্দি। এখন আর আমার জীবনের হিসেব মেলাতে পারছিনা। ছেলে-মেয়ে সহ পরিবারের সবার কাছে মুখ দেখাতেও কস্ট হয়। আমাকে সামাজিকভাবে মেরে ফেলা হয়েছে। এই বিচার কে করবে। আমিএর বিচার চাই।’ এ ব্যাপারে বাউফল থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ফরেনসিক মেডিকেল রিপোর্ট বাউফল থানায় আসছে। ফরেনসিক রিপোর্ট অনুযায়ী উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here