বোচাগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া পাকা ঘর পেয়ে কেঁদে দিলেন অসহায় পরিবার

বোচাগঞ্জ প্রতিনিধিঃবৃদ্ধ ছাবের আলী নিজের বয়স ঠিকমত বলতে পারেনা, তবে অনুমান করা যায় ৭৫ বছর হবে। ১ ছেলে ৪ মেয়ে। অনেক কষ্টে ছেলে মেয়েদের বড় করে বিয়ে দিয়েছে। ছেলেকে আলাদা করে দিয়ে তিনি থাকেন খড়ের ছাউনি ঘেরা উপরে নি¤œমানের টিন দিয়ে তৈরি পুকুরপাড়ে সরকারি জমিতে  ছোট একটি ক্ুঁড়ে ঘরে। ঝড় বৃষ্টি এবং কনকনে শীতেও স্বামী স্ত্রীকে রাত্রীযাপন  করতে হয় এই কুড়ে ঘরে। অনেক সময় প্রবল ঝড় বাতাসে তাদের ঘরের টিন উড়িয়ে নিয়ে গেছে। ঘরের ভিতরে থাকা স্বামী স্ত্রী বৃষ্টিতে সমস্ত শরীর ভিজে গেছে। তাদের করার কিছুই ছিলোনা। যাবার মত কোন জায়গা ছিলোনা, সেই কুঁড়ে ঘরেই রাত পাড় করতে হয়েছে। তাদের  কুড়ে ঘরে বিদ্যুৎ এর আলোর মুখ দেখেনি।  প্রকৃতির ডাকে সারা দিতে তাদেরকে যেতে হয় খোলা আকাশের নিচে। তাদের নেই কোন ল্যাট্রিন। অনেক কষ্টে তাদেরকে জীবন যাপন করতে হয়।বলছি দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলার ৬ নম্বর রনগাঁও ইউনিয়নের কনুয়া গ্রামের আল্লাদিয়া পুকুরপাড়ের কুড়ে ঘরে  বসবাস করা বৃদ্ধ মো. ছাবের আলীর কথা।

বৃদ্ধ বয়সী ছাবের আলী বলেন, একদিন সকালবেলা হামার এইখানে ইউএনও সাহেবকে দেখে চমকি গেছু। হামাক কহিল দাঁড়াও। তারপর বুড়া বুড়ির ফোটু তুলে নিল। ফোটু তুলার পর কহিনু  ফোটু দিয়ে কি হবে ? ইউএনও কহিল, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিক উপলক্ষে নাকি পাকা ঘর হবে। আর হামাক একখান পাকা ঘর করে দিবে। ঘড়ের কাথা শুনে খুবেই আনন্দ লাগিছে বাপু। শেখের বেটি হামাক পাকা ঘর করে দিবে শুনে মনটা কান্দি উঠিল। প্রধানমন্ত্রীর কথা বলতে গিয়ে তিনি আবেগ আপ্লুত হয়ে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর জন্য মোর মন কি কহেছে বাপু উপরে আল্লাহ জানে আর মুই জানু। ওনার তানে মুই সবসময় কাঁদি। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে প্রধানমন্ত্রীর তানে দোয়া করি। আল্লাহ যেনো ওনাক অনেকদিন বাঁচায় রাখে।বোচাগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী অফিসার ছন্দা পাল কর্তৃক মুজিববর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহার পাকা ঘড়ের তালিকায় তার নাম থাকায় বৃদ্ধ ছাবের আলী  নিজের ভাষায় এভাবেই কথা বলছিল।বোচাগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় ছয় ইউনিয়নের ৪৩০টি গৃহ নির্মাণ করা হচ্ছে। বয়স্ক ৪৪ জন, দিনমজুর ২৩৫ জন, মুক্তিযোদ্ধার পরিবার ৩ জন, বিধবা ৩০ জন, প্রতিবন্ধী ১২ জন, ভিক্ষুক ২৭ জন, ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠী ৭৮ জন এবং  তৃতীয়লিঙ্গ ১ জন সর্বমোট ৪৩০ জন পরিবার মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার আশ্রয়স্থল হিসেবে অসহায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাথা গোঁজার ঠাই হচ্ছে। বৃদ্ধ ছাবের আলী তাদের মধ্যে একজন।বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছন্দা পাল জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার আশ্রয়স্থল হিসেবে অসহায় ভূমিহীন ও গৃহহীদের গৃহ দিচ্ছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সারাদেশের  ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। আমার উপজেলায় ৪৩০ টি গৃহ নির্মাণ হচ্ছে। প্রকৃত অসহায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের তালিকা করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here