বিদেশে কাদের কয়টা ফ্ল্যাট-বাড়ি, তালিকা চেয়ে চিঠি দুদকের

নিজস্ব প্রতিনিধিঃকানাডা, সিঙ্গাপুর, অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়াসহ দেশের বাইরে বিলাসবহুল ফ্ল্যাট কেনা বাংলাদেশিদের তালিকা চেয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন। উচ্চ আদালতের এক নির্দেশনায় দুদক পরিচালক (মানি লন্ডারিং) আ ন ম আল ফিরোজ স্বাক্ষরিত সেই চিঠি গত সোমবার (১১ জানুয়ারি) পৌঁছে দেয়া হয়।

চিঠিতে বলা হয়েছে, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের গবেষণা ও প্রত্রিকায় প্রকাশিত আমদানি-রফতানি বাণিজ্য মিসইনভয়েসিং হুন্ডি, ব্যাংক ক্যাশ ট্রান্সফারের মতো পদ্ধতির মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে প্রতিবছর বিপুল পরিমাণ অর্থ বিভিন্ন দেশে পাচার হয়ে থাকে। ফলে বাংলাদেশ প্রতিনিয়ত মূলধন হারাচ্ছে। এতে উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। বাংলাদেশকে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করতে যে পরিমাণ দেশীয় বিনিয়োগ প্রয়োজন, তা নিশ্চিত করতে হলে অর্থপাচার রোধ একান্ত প্রয়োজন।

দুদকের সেই চিঠিতে উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে, বাংলাদেশের নাগরিকদের একাংশ এ দেশ থেকে অর্থপাচার করে বিদেশে বিনিয়োগের মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের নাগরিকত্ব গ্রহণ করেছেন। বহুল আলোচিত পানামা পেপার্স, প্যারাডাইস পেপারর্স ইত্যাদি কেলেঙ্কারিতে অনেক বাংলাদেশির নাম উঠে এসেছে। এ ধারা রোধ করা সম্ভব না হলে আমাদের অর্থনৈতিক গতিশীলতা ভবিষ্যতে থমকে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, অর্থপাচারের মাধ্যমে নাগরিকত্ব গ্রহণ রোধের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিয়ে সম্পদ দেশে ফিরিয়ে আনার বিকল্প নেই।

ওই চিঠিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নজর আকর্ষণ করে বলা হয়েছে, দুর্নীতি দমনবিষয়ক আন্তর্জাতিক সহায়তা গ্রহণের ক্ষেত্রে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রাথমিক পর্যায়ে বিভিন্ন দেশে পাচার করা সম্পদ বিনিয়োগের মাধ্যমে নাগরিকত্ব গ্রহণকারী বাংলাদেশিদের তথ্য কূটনৈতিক চ্যানেলে সংগ্রহ করে দিলে দুদক দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নিতে উদ্যোগী হতে পারবে।

এ অবস্থায় ইনভেস্টমেন্ট কোটায় যেসব বাংলাদেশি অন্যান্য দেশের নাগরিকত্ব নিয়েছেন, তাদের সম্পর্কে তথ্য বা তালিকা দূতাবাসের মাধ্যমে বা অন্য কোনও উপায়ে পাওয়া যাবে কিনা, তা জানাতে চিঠিতে অনুরোধ জানিয়েছে দুদক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here