স্কুলের গণ্ডি পার হননি টুঙ্গিপাড়ার বেশিভাগ কাউন্সিলর প্রার্থী

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি:আগামী ৩০ জানুয়ারি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে মেয়র পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল। এ পৌরসভায় শুধুমাত্র কাউন্সিলর ও মহিলা কাউন্সিলর পদে ভোট হবে।

 

এ নির্বাচনে কাউন্সিলর ও মহিলা কাউন্সিলর পদে মোট ৩৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ২৬ জন ও সংরক্ষিত ৩টি ওয়ার্ডে ১০ জন মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন।

তবে এসব প্রার্থীদের মধ্যে ২৪ জন প্রার্থী হলফনামায় নিজেদের স্বশিক্ষিত বলে উল্লেখ করেছেন। বাকী ১২ জনের মধ্যে দুইজন বিএ, একজন ডিপ্লোমা, দুইজন এইচএসসি, দুইজন এসএসসি ও পাঁচজন অষ্টম শ্রেণি পাশ দেখিয়েছেন।

১ নং ওয়ার্ড: ১ নং ওয়ার্ডের মোট প্রার্থী চারজন। বর্তমান কাউন্সিলর মো. গাউচ শেখ কেবলমাত্র অক্ষর চেনেন। আলমগীর হোসেন শেখ ঢাকার অতীশ দীপঙ্কর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্বিবিদ্যালয় থেকে বিবিএ পাশ করেছেন। এছাড়া এসএম জাকির হোসেন ও লুৎফর রহমান নিজেদের ৮ম শ্রেণি পাশ বলে উল্লেখ করেছেন।

২ নং ওয়ার্ড: এ ওয়ার্ডে মোট প্রার্থী দুইজন। বর্তমান কাউন্সিলর কাজী দেলোয়ার হোসেন স্বশিক্ষিত বলে উল্লেখ করেছেন। সাবেক কাউন্সিলর লিটন হোসেন নিজেকে এসএসসি পাশ দেখিয়েছেন।

৩ নং ওয়ার্ড: এ ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর বেল্লাল মোল্যা নিজেকে স্বশিক্ষিত দাবি করেছেন। অপর প্রার্থী মইনুল ইসলাম অপু কেবলমাত্র অক্ষর চেনেন বলে হলফনামায় উল্লেখ করেছেন।

৪ নং ওয়ার্ড: এ ওয়ার্ডে প্রার্থী তিনজন। সাবেক কাউন্সিলর রেজাউল ইসলাম শুধুমাত্র স্বাক্ষর করেত জানেন। অরেক প্রার্থী কাজী আরিফুজ্জামান স্বশিক্ষিত ও আবুল কালাম আজাদ এইচএসসি পাশ বলে হলফনামায় উল্লেখ করেছেন।

৫ নং ওয়ার্ড: এ ওয়ার্ডে প্রার্থী মাত্র দুইজন। এর মধ্যে সাবেক কাউন্সিলর কাজী ফকরুল স্বশিক্ষিত দেখিয়েছেন। এছাড়া নুরুল ইসলাম উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় হতে বিএ পাশ করেছে বলে উল্লেখ করেছেন।

৬ নং ওয়ার্ড: এ ওয়ার্ডে প্রার্থী তিনজন। সাবেক কাউন্সিলর কাজী বাহাউদ্দিন ৮ম শ্রেণি পাস। অন্য দুই প্রার্থীর মধ্যে মো. ফায়েক শেখ স্বশিক্ষিত বলেছেন ও তরিকুল ইসলাম এসএসি পাশ করার পর মেডিকেল টেকনোজলি ডেন্টালের উপর ডিপ্লোমা করেছেন বলে হলফনামায় উল্লেখ করেছেন।

৭ নং ওয়ার্ড: এ ওয়ার্ডে প্রার্থী চারজন। এর মধ্যে চাঁন মিয়া শেখ, মো. জালাল শেখ ও হাফিজুর বিশ্বাস নিজেদের স্বশিক্ষিত দাবি করেছেন। অন্য প্রার্থী বতর্মান কাউন্সিলর স্কুলে না গেলেও আরবি লাইনে হাফেজি পড়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন।

৮ নং ওয়ার্ড: এ ওয়ার্ডের তিনজন প্রার্থীর মধ্যে একজনও স্কুলে যাননি। মো. কেরামত আলী মোল্যা, এমএ মালেক ও গোবিন্দ সাহা স্বশিক্ষিত বলে উল্লেখ করেছেন।

৯ নং ওয়ার্ড: এ ওয়ার্ডের প্রার্থী মো. নাসির শেখ স্বশিক্ষিত ও অপর প্রার্থী মো. মুজাহিদুল ইসলাম এসএসসি পাশ বলে উল্লেখ করেছেন। একমাত্র মনোনয়ন বাতিল হয়ে যাওয়া প্রার্থী সৈয়দ আল আমিনও স্বশিক্ষিত।

এদিকে ৩টি সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ওয়ার্ডে ১০ জন প্রার্থ হয়েছেন। এর মধ্যে প্রার্থী কুলসুম খান এইচএসসি পাশ। ফাতিমা জিন্নাহ ও আসমা আক্তার শিল্পী ৮ম শ্রেণি পাশ। শাহানা বেগম, সাবিনা আক্তার, পারভিন বেগম, রচনা বেগম, নাবিলা আক্তার, কোহিনূর বেগম. পাপিয়া বেগম স্কুলে যাননি। তারা হলফনামায় স্বশিক্ষিত বলে উল্লেখ করেছেন।

পৌরবাসী বলছে, এ পৌরসভার বেশিরভাগ কাউন্সিলর প্রার্থী স্কুলেই যাননি। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত মেয়র শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল এ সকল কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে থেকে নির্বাচিত হওয়া কাউন্সিলরদের নিয়ে কিভাবে আগামী ৫ বছর পৌরসভা চলাবেন এখন সেটাই দেখার বিষয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here