জাল স্ট্যাম্পে বাজার সয়লাব, জড়িত সরকারি কর্মকর্তারাও!

তৌহিদুজ্জামান তন্ময়:জমি কিনলে কিংবা ফ্ল্যাট হস্তান্তর করলে নিবন্ধন (রেজিস্ট্রেশন) করতে হয়। নিবন্ধনের জন্য বিভিন্ন মূল্যের রেভিনিউ স্ট্যাম্প লাগে। এখন যে স্ট্যাম্প আপনি কিনছেন তা ‘আসল না নকল’ তা বোঝা কঠিন। কারণ এতে টাকার মতো জলছাপ বা বিশেষ নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য থাকে না।

এছাড়া স্ট্যাম্প কেনাবেচায় নেই কোনও তদারকি। কে বিক্রি করছে, কত বিক্রি করছে, বাজারে চাহিদা কত- এসব দেখভাল করারও কোনও সংস্থাও নেই। ফলে দেশে জাল বা নকল রেভিনিউ স্ট্যাম্প ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়েছে।

স্ট্যাম্প ব্যাপকভাবে নকল হওয়ায় সরকার হারাচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব। কঠোর আইন না থাকায় ফুলে-ফেঁপে উঠছে একটি বিশেষ সুবিধাভোগী গোষ্ঠী। জানা যায়, শুধু রেভিনিউ স্ট্যাম্প নয়, এর সঙ্গে চালান ও পে অর্ডারও নকল হচ্ছে।

১৮ কোটি টাকা মূল্যের জাল স্ট্যাম্প, ডাক টিকিট, কোর্ট ফি জালিয়াত চক্রের সঙ্গে একাধিক সরকারি প্রতিষ্ঠানের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যোগসাজশ পেয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। গত ১৯ নভেম্বর এমন একটি চক্রকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) রমনা বিভাগ। চক্রটি জাল স্ট্যাম্প, ডাক টিকিট, কোর্ট ফি তৈরি করতো জানা গেছে।

গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের রমনা বিভাগের জোনাল টিমের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মিশু বিশ্বাসের নেতৃত্বে পল্টন ও আশুলিয়া থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এসময় জাল স্ট্যাম্প প্রস্তুতের জন্য ব্যবহৃত একটি কম্পিউটার, একটি প্রিন্টার, দুটি বড় ইলেকট্রিক সেলাই মেশিন ও একটি ভারি সেলাই মেশিন উদ্ধার করা হয়।

গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, জাল স্ট্যাম্প, ডাক টিকিট, কোর্ট ফি প্রস্তুতের কারখানায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে এ চক্রের সঙ্গে জড়িত কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী সম্পর্কেও তথ্য পাওয়া গেছে।

সংশ্লিষ্ট গোয়েন্দা পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, এই জাল স্ট্যাম্প, ডাক টিকিট, কোর্ট ফিগুলো কিছু অসৎ ভেন্ডরদের মাধ্যমে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে সরবরাহ করা হতো। এ কাজে সহায়তা করতো অসাধু তৃতীয় শ্রেণির কর্মকর্তারা। পেপারগুলোর প্রস্তুত থেকে শুরু করে বিতরণ, ব্যবহার পর্যন্ত পুরো বিষয়টিই তারা জানতেন।

ডিবি পুলিশ বলছে, আদালতেরও বেশ কয়েকজন অসাধু কর্মচারীর তথ্য পেয়েছি আমরা। তাদের নজরদারিতে রাখা হয়েছে। তথ্যের সত্যতা মিললে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

অভিযান সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, পাঁচ হাজার টাকার কোর্ট ফির একটি বড় জাল স্ট্যাম্প বানাতে তাদের খরচ হয় দশ থেকে পনেরো টাকা। সেই দশ টাকার কাগজে স্ট্যাম্পের প্রচ্ছদ ও ভুয়া নম্বর দিয়ে পাঁচ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন তারা। পাঁচশ’ থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত স্ট্যাম্প জাল করার তথ্য পেয়েছেন গোয়েন্দারা। এই চক্রটির সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত অসাধু উকিল, ভেন্ডর ও দলিল লেখকও। তারাই সুকৌশলে আসল স্ট্যাম্পের মধ্যে জাল স্ট্যাম্প ঢুকিয়ে দিচ্ছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বলছেন, স্ট্যাম্প ও দলিল আসল নকল যাচাই করার জন্য আলাদা লেজার মেশিন দিয়ে তা নির্ণয় করতে হয়। অন্য কোনও প্রক্রিয়া নেই। আর তাই স্ট্যাম্প ও ডাক টিকিট ডিজিটালাইজেশন করার জন্য টাঁকশালের কাছে আবেদন করবে গোয়েন্দা পুলিশ।

অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মিশু বিশ্বাস  বলেন, ‘আমরা শিগগিরই টাঁকশালের কাছে স্ট্যাম্প ও দলিল ডিজিটালাইজেশন করার জন্য আবেদন করবো। এতে করে সহজে মানুষ যাতে জাল স্ট্যাম্প ও ডাক টিকিট নির্ণয় করতে পারে।’

ঢাকা মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) রমনা বিভাগের (ডিসি) এইচ এম আজিমুল হক  বলেন, ‘গ্রেফতারকৃতরা দীর্ঘদিন জাল স্ট্যাম্প তৈরি করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করে আসছে। এতে সরকার যেমন রাজস্ব হারিয়েছে, তেমনই সাধারণ মানুষও প্রতারিত হয়েছে। এ ধরনের অভিযান আমরা অব্যাহত রাখবো।’

জানতে চাইলে ঢাকা ট্যাক্সেস বার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সুফি মো. আল মামুন বলেন, ‘আমাদের প্রতিদিনই কোর্ট ফি লাগে। অ্যাসোসিয়েশনের হিসাবরক্ষক আলফাজ দীর্ঘদিন ধরে এগুলো বিক্রি করত। আইনজীবীরা এতদিন বুঝতে পারেনি কোনটি আসল কোনটি জাল। সম্প্রতি এক আইনজীবীর সন্দেহ হওয়াতে আলফাজকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। সে জাল কোর্ট ফি ও স্ট্যাম্প বিক্রির কথা স্বীকার করায় তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। সে কোনো আইনজীবীর সম্পৃক্ততার কথা আমাদের কাছে বলেনি। যদি কোনো আইনজীবীর সম্পৃক্ততার তথ্যপ্রমাণ সে দিতে পারে, তাহলে অবশ্যই আমরা ব্যবস্থা নেবো।’

জাল স্ট্যাম্প চেনা কঠিন:
বাংলাদেশ স্ট্যাম্প ভেন্ডর সমিতির সভাপতি সুব্রত কুমার দে বলেন, ‘স্ট্যাম্প বিক্রি করতে হলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে লাইসেন্স নিতে হয়। বৈধ ভেন্ডর হয়েও যদি কেউ বেশি লাভের আশায় জাল স্ট্যাম্প বিক্রি করে, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে প্রশাসন ও সমিতির পক্ষ থেকে শক্ত নির্দেশনা দেয়া আছে। তবে এটাও ঠিক যে, সাধারণ ক্রেতা বা ভেন্ডরের পক্ষে জাল স্ট্যাম্প শনাক্ত করা কঠিন। এসব জাল স্ট্যাম্প ব্যবহার করে সম্পাদিত দলিলপত্র বৈধ হবে না।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here