বিধবা নারীর উপর হামলার অভিযোগে মির্জাগঞ্জ থানা ছাত্রলীগ যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক নুরুল হক সহ- ৩ জনের নামে বরিশাল আদালতে মামলা দায়ের

নিজস্ব প্রতিনিধি : বিধবা নারীর উপর হামলা ও জমি দখলের অভিযোগে মির্জাগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পদক মোঃ নুরুল হক সহ- ৩ জনের নামে বরিশালের বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট বাকেরগঞ্জ আমলী আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা নং- ৪২৪/২০২০। বাদী রহিমা বেগমের বাড়ী পটুয়াখালী জেলার মীর্জাগন্জ উপজেলার ৪ – নং সুবিদখালী ইউনিয়নের উত্তর চতরা গ্রামে ।

রহিমার দায়ের করা মামলায় স্বাক্ষী মোঃ আবু হানিফ বলেন, মামলায় স্বাক্ষী হওয়ায় তাকে ১ নং অাসামী মির্জাগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পদক নুরুল হক তার হাত – পায়ের রগ কেঁটে দিবে বলে হুমকি দিয়েছে।

আহত বিধবা রহিমা বেগম বলেন, গত- ১৮ নভেম্বর বুধবার দুপুর ২ টার দিকে রহিমা বেগমদের জমি জোড় পূর্বক দখল করতে আসলে বাঁধা দিলে লাঠি সোঠা দিয়ে তার উপর হামলা চালায় একাব্বর আলীর ছেলে নুরুল হক (৩৫), তার বড় ভাই নয়ন মোল্লা (৪৫),ও মৃত.জালাল উদ্দীন মিয়ার ছেলে আঃ কুদ্দুস (৩৮) সহ- তাদের সাথে থাকা অজ্ঞাত ১০-১২ জন।

আহত রহিমা বেগম জানান ঐদিন বিকাল ৪ টার দিকে থানায় অভিযোগ করতে যাওয়ার সময় পথরোধ করে তার উপর ফের হামলা চালায় অভিযুক্তরা।

হামলায় আহত রহিমা’র ভাইয়ের ছেলে মোঃরাশেদ বলেন, ফুপুকে উন্নত চিকিৎসার জন্য মাহিন্দ্রা যোগে ১৯ নভেম্বর সকাল ৭ টার দিকে বরিশালে নিয়ে যাওয়ার পথে বাকেরগন্জ’র পাদ্রীশীপ পুর নামক স্থান অতিক্রমকালে অভিযুক্তরা ফের তাদের পথরোধ করে মাহিন্দ্রা থেকে নামিয়ে তাদের ফের মারধর করে অাসামীরা। এসময় স্থানীয় জনতা রহিমাকে উদ্ধার করে মূমুর্ষ অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরন করেন। হামলায় রহিমার মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে কালা ফুলা দেখা দিয়েছে।

হামলার শিকার নারীর নাম রহিমা বেগম (৪০), অাহত অবস্থায় বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২ দিন চিকিৎসাধীন ছিলেন।

গত- ২২ নভেম্বর বাদীর অভিযোগ অামলে নিয়ে বরিশালের বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট (বাকেরগঞ্জ) আমলী আদালতের বিচারক এস. এম. মাহফুজ আলম বাকেরগঞ্জ থানার ওসিকে তদনন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছে।

মামলায় বর্নিত অভিযোগের বিষয়ে ১ নং আসামী মোঃ নুরুল হক বলেন, আমি আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মেম্বর পদে নির্বাচন করব। তাই আমার জনপ্রিয়তায় ইর্শান্নিত হয়ে স্থানীয় বিএনপি নেতাদের কুপরামর্শে মোঃ আবু হানিফ মিয়ার মাধ্যমে রহিমা বেগমকে দিয়ে আমার বৃদ্ধ বাবা ও আমার নামে মিথ্যা, বানোয়াট অভিযোগ দিয়ে বরিশালের আদালতে মামলা দিয়েছে।

স্বাক্ষী আবু হানিফ মিয়ার সাথে যুব উন্নয়ন অফিসে বসে সুধু কথার কাটাকাটি হয়েছে। বিষয়টি যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার মাধ্যমে মিমাংশা হয়েছে। আমি তার হাত পায়ের রগ কেঁটে দেয়ার কথা বলিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here