দুশ্চিন্তায় পড়লে যে নামাজ পড়বেন

ধর্ম ডেস্ক:সালাতুল হাজত। এর অর্থ প্রয়োজনের নামাজ। মানুষ যখন শারীরিক বা মানসিকভাবে কোনও দুশ্চিন্তায় পড়ে তখন এ নামাজ পড়তে হয়। এটি একটি বিশেষ নফল ইবাদত। বিশেষ কোনও হালাল চাহিদা পূরণের জন্য আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে দুই রাকাত নফল সালাত আদায় করাকে সালাতুল হাজত বলা হয়।

হুযায়ফা (রাঃ) বলেন, রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) যখন কোন সংকটে পড়তেন, তখন সালাতে রত হতেন।
(আবু দাউদ-১৩১৯, সালাত অধ্যায়-২, অনুচ্ছেদ-৩১২, ছহিহুল জামে-হা/৪৭০৩, মিশকাত- ১৩১৫)

সালাতুল হাজত নামাজের আলাদা কোনও নিয়ম নেই। স্বাভাবিক নামাজের মতোই উত্তমভাবে অজু করে দুই রাকাত নফল নামাজ পড়বে। তবে নিয়ত রাখবেন, দুই রাকাত সালাতুল হাজত পড়ছি। যেহেতু কুরআন হাদীসে এটি আদায় করার আলাদা কোনও নিয়ম বর্ণনা করা হয়নি। তাই এই নামাজ সূরা ফাতিহার সাথে যেকোন সূরা দিয়ে পড়া যায়। অর্থাৎ অন্যান্য স্বাভাবিক নামাজের মতোই উত্তমভাবে অজু করে দুই রাকাত নফল নামাজ পড়তে হবে।

নামাজ শেষে সালাম ফেরানোর পর আল্লাহ তায়ালার হামদ ও সানা (প্রসংশা) পাঠ করে এবং নবী করিম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর ওপর দরুদ শরিফ পাঠ করে নিজের মনের কথা ব্যক্ত করে আল্লাহর নিকট দোয়া করবেন।

দোয়ার ক্ষেত্রে বিশেষভাবে হাদিস শরিফে নিম্নোক্ত দোয়া পাঠের বর্ণনা আছে।

ﻻَ ﺇِﻟَﻪَ ﺇِﻻَّ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﺍﻟْﺤَﻠِﻴﻢُ ﺍﻟْﻜَﺮِﻳﻢُ ﺳُﺒْﺤَﺎﻥَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺭَﺏِّ ﺍﻟْﻌَﺮْﺵِ ﺍﻟْﻌَﻈِﻴﻢِ ﺍﻟْﺤَﻤْﺪُ ﻟِﻠَّﻪِ ﺭَﺏِّ ﺍﻟْﻌَﺎﻟَﻤِﻴﻦَ ﺃَﺳْﺄَﻟُﻚَ ﻣُﻮﺟِﺒَﺎﺕِ ﺭَﺣْﻤَﺘِﻚَ ﻭَﻋَﺰَﺍﺋِﻢَ ﻣَﻐْﻔِﺮَﺗِﻚَ ﻭَﺍﻟْﻐَﻨِﻴﻤَﺔَ ﻣِﻦْ ﻛُﻞِّ ﺑِﺮٍّ ﻭَﺍﻟﺴَّﻼَﻣَﺔَ ﻣِﻦْ ﻛُﻞِّ ﺇِﺛْﻢٍ ﻻَ ﺗَﺪَﻉْ ﻟِﻲ ﺫَﻧْﺒًﺎ ﺇِﻻَّ ﻏَﻔَﺮْﺗَﻪُ ﻭَﻻَ ﻫَﻤًّﺎ ﺇِﻻَّ ﻓَﺮَّﺟْﺘَﻪُ ﻭَﻻَ ﺣَﺎﺟَﺔً ﻫِﻲَ ﻟَﻚَ ﺭِﺿًﺎ ﺇِﻻَّ ﻗَﻀَﻴْﺘَﻬَﺎ ﻳَﺎ ﺃَﺭْﺣَﻢَ ﺍﻟﺮَّﺍﺣِﻤِﻴﻦَ

উচ্চারণ- লা- ইলাহা ইল্লাল্লাহুল হালি-মুল কারি-ম সুবহা-নাল্লাহি রব্বিল আরশিল আযীম।

আলহামদুলিল্লাহি রব্বিল আলামিন, আছআলুকা মু-জিবাতি রাহমাতিক ওয়া আজা-ইমা মাগফিরাতিক ওয়াল গনি-মাতা মিং কুল্লি বিররিউ ওয়াছ ছালা-মাতা মিং কুল্লি ইছমিন লা তাদা’আলি- জাম্বান ইল্লা গফারতাহু ওয়ালা হাম্মান ইল্লা ফাররাজতাহু ওয়ালা হা জাতান হিয়া লাকা রিদং ইল্লা ক্বদাইতাহা ইয়া আর’হামার র হিমি ন৷

অর্থ- ‘আল্লাহ ছাড়া কোন ইলাহ নেই। তিনি অতি সহিষ্ণু ও দয়ালু, সকল দোষ-ক্রটি থেকে পবিত্র তিনি, মহান আরশের প্রভু।
সকল প্রশংসা আল্লাহর, তিনি সারা জাহানের রব। আপনার কাছেই আমরা যাঞ্ছা করি, আপনার রহমত আকর্ষণকারী সকল পূণ্যকর্মের ওয়াসীলায়, আপনার ক্ষমা ও মাগফিরাত আকর্ষণকারী সকল ক্রিয়াকাণ্ডের বরকত, সকল নেক কাজ সাফল্য লাভের এবং সব ধরনের গুনাহ থেকে নিরাপত্তা লাভের। আমার কোন গুনাহ যেন মাফ ছাড়া না থাকে। কোন সমস্যা যেন সমাধান ছাড়া না যায় আর আমার এমন প্রয়োজন যাতে রয়েছে আপনার সন্তুষ্টি তা যেন অপূরণ না থাকে, হে আর রাহমানুর রাহিমীন, হে সর্বশ্রেষ্ঠ দয়ালু।, (ইবনু মাজাহ ১৩৮৪, তিরমিজী ৪৭৯)

সুতরাং দোয়ার ক্ষেত্রে হাদিস শরিফে বর্ণিত উপরোক্ত দোয়াটি অন্যান্য দোয়ার সাথে নামাজের শেষে বিশেষভাবে পড়া যেতে পারে।

তবে দোয়াটি পড়তেই হবে এমন নয়। আপনি ২রাকাত নফল হাজতের নামাজ শেষ করে আপনার মত করে দোয়া করলেও কোনও অসুবিধা নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here