গতবছরের ১ হাজার দুর্ঘটনায় দায়ী গ্যাস লিকেজ: ফায়ার সার্ভিস

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ কখনো অন্য সংস্থাগুলোর সমন্বয়হীনতার বলি, কখনো দেখভালের অভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে রাজধানীতে গ্যাস পাইপলাইন। ফায়ার সার্ভিসের তথ্যমতে, ২০১৯ সালে প্রায় ১ হাজারটি দুর্ঘটনার পেছনে দায়ী গ্যাস লিকেজ।

আবারো রাজধানীতে গ্যাস লিকেজ। তবে এবারের কারণ, সিটি করপোরেশনের সুয়ারেজ লাইন মেরামত করতে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় তিতাসের পাইপলাইন। রাজধানীতে প্রায়ই বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ কিংবা সেবা সংস্থাগুলোর লাইন মেরামত করতে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে গ্যাস এমআরটি পাইপলাইন। রাজধানীর উত্তরায় হাউজবিল্ডিং এলাকায় কমপক্ষে ৪ বার MRT প্রকল্পের কাজ করতে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে গ্যাস পাইপলাইন।

সম্প্রতি রাজধানীর শেওড়াপাড়া, ফার্মগেট, ডেমরায় মূল সড়কে গ্যাস পাইপলাইন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পেছনেও রয়েছে কখনো ওয়াসার লাইন, কখনো বা মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজ, কখনো বা অন্যান্য উন্নয়ন কাজের ফলে হয়েছে।

তিতাসের তথ্য মতে, গত ২০১৯ সাল থেকে ২৫টির বেশি বড় ধরনের গ্যাস লিকেজ হয়েছে অন্য সংস্থাগুলোর কাজের কারণে। এর বাইরে এ রকম ছোটোখাটো ঘটনা আছে শতাধিক। সেবা সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারণে বারবার ঘটা দুর্ঘটনা ঠেকাতে আধুনিক প্রযুক্তি নিরভর ম্যাপিং এর পরামর্শ নগর পরিকল্পনাবিদদের।

নগর পরিকল্পনাবিদ হাবিবুর রহমান বলেন, জিপিএস লাইডার সিস্টেম বলে টেকনোলজি রয়েছে যার মাধ্যমে সংস্থাগুলো নিজেদের ম্যাপিং করতে পারবে।

রয়েছে মুদ্রার উল্টো পিঠও। তিতাসের গাফিলতিতেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে গ্যাস পাইপলাইন। নারায়ণগঞ্জ বিস্ফোরণ যার সবশেষ উদাহরণ।

ফায়ার সার্ভিসের তথ্যমতে, ২০১৯ সালে প্রায় ১ হাজারটি দুর্ঘটনার পেছনে দায়ী গ্যাস লিকেজ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, লিকেজজনিত দুর্ঘটনা ঠেকাতে তিতাসের লাইন সার্ভের কোনো বিকল্প নেই।

ফায়ার সার্ভিসের একজন বলেন, যেহেতু কোন ডিজিটাল ম্যাপিং নেই, কোন ব্যবস্থা নেই পাইপলাইনগুলো চিহ্নিত করা যায়, তাই অন্য ব্যবস্থা নিতে হবে। একই সঙ্গে ৩০-৪০ বছরের পুরোনো লাইন বদলে ফেলার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here