দেশটা কি ধর্ষকদের অভয়ারণ্যে পরিণত হচ্ছে?

নিজস্ব প্রতিনিধিঃসিলেটের এমসি কলেজে গৃহবধূকে, মুন্সিগঞ্জে ৭২ বছরের বৃদ্ধাকে, হবিগঞ্জের মা ও মেয়েকে গণধর্ষণ ও নোয়খালিতে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে পাশবিক নির্যাতন ও উলঙ্গ ভিডিও প্রকাশসহ সারাদেশে নারী নির্যাতন-ধর্ষণের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও উৎকন্ঠা প্রকাশ করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

দলটি সরকারের কাছে জানতে চেয়েছেন, দেশটা কি ধর্ষকদের অভয়ারণ্যে পরিনত হচ্ছে? রাষ্ট্র এই লজ্জা কোথায় রাখবে? কিছু নরপিশাচ, কিছু মানুষরূপী হায়না আমাদের সকল অহঙ্কার, নীতি-নৈতিকতা ও গৌরবের জায়গাকে ভেঙে খান খান করে দিচ্ছে কাদের পৃষ্টপোষকতায়? ধর্ষকরা এতো সাহস কোথা থেকে পায়, কে জোগায়?

সোমবার (৫ অক্টোবর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া সরকারের নিকট এসব প্রশ্ন তোলেন।

তারা বলেন, বাংলাদেশে ধর্ষণের ঘটনা নতুন নয়।  বহুবার দেশবাসীকে দেখতে হচ্ছে এমন পাশবিকতা। ক্রমে যেন ধর্ষণ আমাদের দেশে নিত্যনৈমত্তিক বিষয়ে পরিণত হয়ে যাচ্ছে।  কলেজছাত্রী তনুকে গণধর্ষণ করে হত্যা, তার রেশ কাটতে না কাটতেই নোয়াখালীর সুবর্ণচরে এক গৃহবধূকে গণধর্ষণ, পার্বত্য চট্টগ্রামে একটি মেয়েকে ডাকাত দলের গণধর্ষণ।  ফেনীতে মাদরাসার সুপার কর্তৃক শ্লীলতাহানির পর গায়ে আগুন ধরিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয় তারই ছাত্রী নুসরাত জাহানকে।  নারায়ণগঞ্জে মাদরাসাসুপার একে একে ধর্ষণ করে ১২জন শিক্ষার্থীকে।  রাজধানীর ওয়ারীতে সাত বছরের শিশু সায়মাকে ধর্ষণ করে হত্যা, নেত্রকোনার এক শিক্ষক আবুল খায়ের গত এক বছরে ধর্ষণ করেছে ছয়জন শিশুকে যাদের বয়স ৮ থেকে ১১ বছর।  ধর্ষণের পর অপবিত্র অবস্থায় ধর্ষিতা শিশুদের পবিত্র কুরআন শরীফ স্পর্শ করিয়ে প্রতিজ্ঞা সে করাতো যেন এই লোমহর্ষক ঘটনা কাউকে না বলে।  এসব কিসের লক্ষণ-কিশের ইঙ্গিত বহন করছে?

নেতৃদ্বয় বলেন, দেশে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচারের সংস্কৃতি না থাকায় অন্যায় অপকর্ম ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে।  ঘটনার পর দেশ-বিদেশে সর্বত্র জনসাধারণ দেখাচ্ছে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া।  কিন্তু যাদের হাতে রিমোট সেই ক্ষমতাসীন মহল যদি দেখেও না দেখার ভান করেন, তাহলে দেশবাসীর ক্ষোভ বিক্ষোভ হবে কেবলই অরণ্যে রোদন।  প্রায় দেখা যায় এই সব নরপশুর গডফাদার হিসেবে যে ব্যক্তিদের নাম আলোচিত হয় তারা নিজেরাই ঘটনার বিচার চেয়ে পত্রিকায় বিবৃতি দেয়।  ফলে অপরাধি ধর্ষকরা পার পেয়ে যায় অনেক ক্ষেত্রেই।

তারা আরও বলেন, দেশের এই চরম খারাপ সময়ে দেশের মন্ত্রী ও দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের নিকট থেকে দেশ ও জাতি কাগজে শুধু বিবৃতি কিংবা সান্তনাবাণী প্রত্যাশা করে না।  তারা ত্বরিত কার্যকর উদ্যোগ দেখতে চায়।  চহ্নিত অপরাধী এবং তাদের আশ্রয়দাতা গডফাদারদের গ্রেফতার করে দ্রুত বিচার ও বিচারের রায় কার্যকর দেখতে চায়।  গডফাদারদের নিরাপদে রেখে শুধু চুনোপুঁটিদের গ্রেফতার করা হলে এটা হবে বিচারের নামে প্রহসন।  গাছের গোড়া কেটে দিয়ে আগায় আমরা যত পানি ঢালি না কেন, কোনো লাভ হবে না।

নেতৃদ্বয় বলেন, অপরাধী চক্রের কয়েকজন গ্রেফতার হওয়ায় ক্ষমতাসীন দলের অনেকেই তৃপ্তির ঢেকুর তুলছেন। কিন্তু এমন ‘গ্রেফতার নাটক’ তো দেশবাসীর অতীতেও কম দেখিনি। কেউ যদি এই সব অপরাধীকে বাঁচিয়ে রেখে লোক দেখানো বিচার করতে চান তা হবে আত্মঘাতী।  এক সময় হয়তো দেশবাসী প্রত্যক্ষ করবে, এই লম্পটগুলো তাদের আশ্রয়দাতাদের পরিবারের মেয়েদের দিকেও হাত বাড়িয়েছে। তাই সময় থাকতে সরকার ও সকলকে সচেতন হতে হবে, প্রতিবাদী হতে হবে। বহু কষ্টে অর্জিত এই দেশ ধর্ষকদের অভায়ণ্যে পরিণত হোক, দেশবাসী এটা দেখতে চায় না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here