বাউফলে জমিজমা বিরোধে শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে জখম; থানায় অভিযোগ

বাউফল প্রতিনিধি ঃপটুয়াখালীর বাউফলে জমাজমি সংক্রান্ত বিরোধে প্রতিপক্ষের হামলায় স্কুল শিক্ষার্থী মোসাঃ শামিমা আক্তার মীমকে পিটিয়ে জখম করা হয়েছে। ২৩ সেপ্টেম্বর দুপুর ২ টায় পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ড মোসলেম সরদার মুসা বাড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শিক্ষার্থীর বাবা মোঃ মোসলেম সরদার বাদী হয়ে ২৪ সেপ্টেম্বর বাউফল থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন। বাউফল থানার সাধারন ডায়েরী নং ১১১৬। থানায় অভিযোগ সূত্রে ও অভিযোগকারী মোসলেম সরদার মুসার বক্তব্যে জানা যায়, বিবাদী মোঃ মোসলেম চৌকিদার গংদের সাথে আমার কবলা রেকর্ডীয় সম্পত্তি নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলিয়া আসিতেছে। বিবাদীরা স্থানীয় শালিস অমান্য করিয়া তাদের ক্রয় করা দাগের জমিতে না যাইয়া আমাদের দাগের জমি দাবি করিয়া জোড় পূর্বক জমিতে ঘর করার পায়তারা করে। জমিজমা বিরোধের পূর্ব জেরে বিবাদী মোসলেম চৌকিদার, সোহেল চৌকিদার, জুয়েল চৌকিদার, সালমা বেগম ২৩সেপ্টেম্বর দুপুরে আমার বসত ঘর পিটাইয়া কোপাইয়া ভাংচুর করে এবং আমার ২৫/২৬ টি বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কাটিয়া ভাংগিয়া প্রায় ২৫ হাজার টাকার ক্ষতি করে। আমি বাধাঁ দিলে বিবাদীরা আমাকে কিল ঘুষি মারিয়া আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে সাধারন জখম করে। আমার মেয়ে স্কুল শিক্ষার্থী শামিমা আক্তার মীম বাধা দিলে তাকে এলোপাথাড়ি আঘাত করে প্রান নাশের হুমকি দেয়। আমি ও আমার মেয়ের ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা উদ্ধার করে বাউফল হাসপাতালে ভর্তি করে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় বাউফল হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার আঃ রব আহত শামিমা আক্তার মীমকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল রেফার করে সিটি স্কানের জন্য পরামর্শ দেন। সিটি স্কান ও ডাক্তারের পরামর্শ শেষে আমার মেয়ে এখন আবার বাউফল হাসপাতালে ভর্তি আছে। আহত শিক্ষার্থী শামিমা আক্তার মীম এ প্রতিনিধিকে জানায়, আমি প্রায়ভেট পড়ে আসার পথে আমার বাবার সাথে জমিজমা নিয়ে বিরোধ থাকায় মোসলেম চৌকিদারসহ ৪জন আমার বাবাকে মারপিট করার সময় আমি বাধা দিলে ওরা আমাকে এলোপাথাড়ি কিল ঘুষি মেরে জখম করে। অভিযুক্ত মোসলেম চৌকিদার অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, আমরা তাদেরকে মারধর করিনি; তারাই আমাদেরকে মেরে মামলা করেছে এবং তার মেয়েকে বাউফল হাসপাতালে ভর্তি করেছে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এএসআই আজাদ জানান, এ ঘটনায় মোঃ মোসলেম সরদার বাউফল থানায় একটি অভিযোগ করেন এবং তার মেয়ে মোসাঃ শামিমা আক্তার মীম বর্তমানে বাউফল হাসপাতালে ভর্তি আছে। অভিযোগটির তদন্ত চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here