দুই চাচার ধর্ষণের শিকার একসন্তানের জননী

নড়াইল প্রতিনিধি:নড়াইলে এক সন্তানের জননী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। ওই নারী ও তার স্বজনদের অভিযোগ, কুমড়ি গ্রামের কুখ্যাত রিপন ও ওহিদুল মোল্যা নামে দুজন মুখ বেঁধে ধর্ষণ করে তাকে। সম্পর্কে তারা মেয়েটির চাচা হয় বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় যাতে মামলা করতে না পারে সেজন্য পরিবার-পরিজনসহ ওই নারীকে গৃহবন্দী করে রাখে দুর্বৃত্তরা।

বুধবার ওই ঘটনার দুই দিন পর বন্দিদশা থেকে কৌশলে পালিয়ে ওই নারী পরিবার-পরিজনের সহায়তায় শুক্রবার নড়াইল সদর হাসপাতলে ভর্তি হন। এ ঘটনায় দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করছেন নির্যাতিতা ও তার পরিবার।

শনিবার (৮ আগস্ট)  লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, লিখিত অভিযোগ না পেলেও ঘটনার সত্যতা পেয়ে অপরাধীদের ধরতে চেষ্টা চলছে।

ভুক্তভোগীদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, স্বামীর সঙ্গে কলহের ফলে বাবার বাড়ি কুমড়ি গ্রামে অবস্থান করছিল ওই নারী। বুধবার সন্ধ্যায় বাড়ির পাশের পুকুরে হাতমুখ ধুতে গেলে একা পেয়ে বাবার চাচাত ভাই (দুই চাচা সন্ত্রাসী রিপন ও ওহিদুল) তাদের সহকর্মী পাশের তালবাড়িয়া গ্রামের জাকির ও নুরুন্নবীর সহযোগিতায় মুখ বেঁধে নির্জনে ধরে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। এ সময় বাধা দেয়ায় দুর্বৃত্তরা মেয়েটিকে বেধড়ক মারপিট করে জানায় মেয়েটি।

সন্ত্রাসীরা পরে তাকে ঘটনা ফাঁস করলে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ছেড়ে দিলেও এ ঘটনায় যাতে মামলা না করতে পারে সেজন্য পরিবার পরিজনসহ মেয়েটিকে বাড়িতে আটকে রাখে। সেখান থেকে কৌশলে পালিয়ে শুক্রবার স্বজনরা তাকে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করান।

চিকিৎসার পাশাপাশি সেখানে তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। আটক থাকার ফলে মামলা করতে বিলম্ব হলেও মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানান মেয়েটির বাবা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here