আরিচাঘাটে বাড়ছে যাত্রী, নিরুপায়ে ঘাটেই কাটছে রাত্রি!

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি:ঈদুল আজহা উপলক্ষে বাড়ি ফেরা মানুষের ভিড় বেড়েছে দেশের নদীবন্দর বাস টার্মিনালে। শেষমুহূর্তে ঢাকা ছাড়ছেন কর্মজীবীরা।  অন্যবছরে ১ সপ্তাহ আগে বাড়ি ফিরলেও এবার তার উল্টো। মহামারি করোনার মধ্য গতদুই দিন মানুষ নাড়ির টানে রওয়ানা দিচ্ছে। এত পথে পথে বাড়ছে ভোগান্তি।

মানিকগঞ্জের শিবালয়ের আরিচা ঘাটে পাবনাসহ উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলগামী আটকে পড়া যাত্রীদেরকে অবর্ননীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের এলাকা থেকে আসা যাত্রীরা আরিচা ঘাটে এসে আটকে পড়েছে। সন্ধ্যার পর আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে লঞ্চ-স্পিডবোটসহ সকল ধরনের নৌ যানজান চলাচল বন্ধ থাকায় আরিচা ঘাটে আটকে পড়েছে শত শত ঘরমুখী যাত্রীরা। রাতের বেলায় বিশেষ ব্যবস্থায় লঞ্চ না ছাড়লে আরিচা ঘাটে রাত্রী যাপন করতে হবে বলে অনেক যাত্রীরা জানিয়েছেন। দীর্ঘ দিনের এরকম দুর্ভোগ লাঘবে আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে ফেরি চলাচলের দাবী জানিয়েছে আটকে পড়া এসব যাত্রীরা।

জানা গেছে, আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে স্পিডবোট সার্ভিস চালু হওয়ার পর যাত্রী চলাচল বেড়েছে। এছাড়া বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকায় যানজট সৃষ্টি হওয়ায় ওই রুটের উত্তর অঞ্চলের অনেক যাত্রী এখন আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে চলাচল করছেন। এ রুটে ১২/১৩টি লঞ্চ এবং আরিচা থেকে ৪০/৪২টি স্পিডবোটে যাত্রী পারাপার করছে। সকাল ৭টায় থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত লঞ্চ এবং সকাল থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত স্পিডবোট চলাচল করে থাকে। রাতের বেলায় ঝুকিপূর্ণ হওয়ায় আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে লঞ্চ-স্পিডবোটসহ সকল ধরনের নৌযান চলাচল করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ফলে পাবনাসহ দেশের উত্তর-পশ্চিমালের যাত্রীরা আরিচা ঘাটে এসে আটকে পড়েছেন। বাধ্য হয়ে এসব যাত্রীদেরকে রাত্রী যাপন করা ছাড়া আর কোন উপায় নাই। এসময়ে  যাত্রীরা খাবার সংকট, পয়ঃনিষ্কাশনসহ নানা ধরনের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বিশেষ করে শিশু ও নারী যাত্রীদের বেশি অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে।

সরেজমিনে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর আরিচা লঞ্চ ঘাট এলাকায় যাত্রীরা তাদের সাথে থাকা ব্যাগ, শিশু সন্তানদেরকে নিয়ে নদী পারা-পারের অপেক্ষায় রাস্তার উপর বসে থাকতে দেখা গেছে। সকাল না হওয়া পর্যন্ত এসব যাত্রীরা পারাপার হতে পারবে না বলে জানা গেছে। এমতবস্থায় আরিচা ঘাটেই রাত্রী যাপন করতে হবে এসব যাত্রীদেরকে। এদিকে যাত্রীদেরকে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য ঘাট এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পাবনাগামী যাত্রী ওমর ফারুক জানান, তিনি একজন গার্মেন্টস কর্মী। তার স্ত্রী এবং সন্তানদেরকে নিয়ে বেলা ৩ টায় নবীনগর থেকে রওয়ানা দিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় আরিচা ঘাটে এসে পৌঁছান। সারা রাস্তায় যানজটের কারণে দেড় ঘণ্টার রাস্তা আসতে তার সময় লেগেছে সাড়ে ৪ ঘণ্টা। যে কারণে আরিচা ঘাটে এসে তাকে আটকে পড়তে হয়েছে। এ অবস্থায় পরিবার-পরিজন নিয়ে তাকে আরিচা ঘাটে রাত্রী যাপন করা ছাড়া কোন উপায় নেই বলে তিনি জানান।

আরিচা লঞ্চ মালিক সমিতি’র সভাপতি আলহাজ্জ্ব আব্দুর রহিম খান জানান, যাত্রীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে রাতের বেলায় আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। সকাল না হওয়া পর্যন্ত উক্ত নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকবে বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে শিবালয় থানার ভারপ্রপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ কবির জানান, রাতে লঞ্চ চালানো খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এ ব্যাপারে তাদের কাছে কোন নির্দেশনা নাই। তবে ঘাটে আটকে পড়া যাত্রীদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here