পল্লবীতে বোমা বিস্ফোরণে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা নেই, ‘ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা’ জড়িত

নিজস্ব প্রতিনিধি:রাজধানীর পল্লবী থানার ভেতরে সন্ত্রাসীদের ওজন মাপার মেশিন বিস্ফোরিত হওয়ার ঘটনার সঙ্গে কোনও জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা দেখছে না পুলিশ। এটিকে ‘ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের কাজ’ বলে দাবি করেছে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট (সিটিটিসি)।
বুধবার (২৯ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের উপ-কমিশনার সাইফুল ইসলাম ব্রেকিংনিউজকে এ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, ‘ তিনজন ভাড়াটে সন্ত্রাসীকে অস্ত্র, গুলি আর ওয়েট মেশিনসহ ধরে আনার পর বুধবার সকাল ৬টার দিকে ওয়েট মেশিনটি বিস্ফোরিত হয়। এসময় পুলিশসহ ৫ জন আহত হন। ঘটনার পর সিটিটিসিসহ পুলিশের সকল ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং আরও কোনও বোমা আছে কি-না তা অনুসন্ধান করে দেখে।’
ঘটনাস্থলে উপস্থিত ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম) কৃষ্ণপদ রায় ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘নিয়মিত টহলের অংশ হিসেবে পুলিশ স্থানীয় তিনজন সন্ত্রাসীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। তাদের কাছ থেকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র, চার রাউন্ড গুলি এবং একটি ডিজিটাল ওয়েট মেশিন পাওয়া যায়। আসামিদের নিয়মিত মামলায় নাম রয়েছে।’
আসামিরা কেন, কী কারণে বোমাগুলো এনেছিল, সেগুলো কোথা থেকে আনা হয়েছে- সবকিছু বের করা হবে বলেও জানান তিনি।
অপর এক প্রশ্নের জবাবে কৃষ্ণপদ রায় বলেন, ‘এ ঘটনার সঙ্গে এখন পর্যন্ত কোনও জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি। তবে কার ওপর হামলার জন্য এসব বোমা তারা সঙ্গে রেখেছিল তা জানার চেষ্টা চলছে।’
এদিকে পল্লবী থানা পুলিশ জানিয়েছে, পুলিশের ধারণা, ওয়েট মেশিনের ভেতর বোমা ছিল। মেশিনটি বিস্ফোরিত হলে সেখানে থাকা আরও কয়েকটি বোমা অবিস্ফোরিত থেকে যায়। পরে ডিএমপির বোম ডিসপোজাল ইউনিট এসে নিষ্ক্রিয়করণে কাজ করে। বোমা দুটি থানার ভেতরেই নিষ্ক্রিয় করা করা হয়েছে।
পল্লবী থানার একজন এএসআই বলেন, ‘ঘটনাস্থলে র‌্যাব, পুলিশ, সিআইডি, পিবিআই, সিটিটিসি, বোম ডিসপোজাল ইউনিটসহ পুলিশের সব ইউনিট কাজ করছে।’
ঘটনাস্থলের বর্ণনা পুলিশ এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়নি। তবে সব বোমা নিষ্ক্রিয় করার পর বিস্তারিত জানানোর কথা রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here