বরিশালে গোল্ডেন লাইন পরিবহনের কাউন্টার ম্যানেজারের গোমর ফাঁস !

এইচ ,এম হেলাল॥ বরিশাল নগরীর কেন্দ্রীয় বাস টারর্মিনালের গোল্ডেন লাইন পরিবহনের কাউন্টার ম্যানেজারের কাছে জামানতের টাকা চাইতে গিয়ে বিপাকে পরেছে এক শ্রমিক। এসময় টাকা না দেয়ার কথা বলে কাউন্টারের সামনে না যাওয়ার সর্তকবার্তা দেন গাল্ডেন লাইন পরিবহনের কাউন্টার ম্যানেজার মোঃ শহিদুল ইসলাম(৩৫)। বুধবার (২২ জুলাই) রাত সাড়ে এগারোটার সময় কল ম্যান মাছুম এর প্রতিবাদ করলে মাছুমকে চর থাপ্পর মারে শহিদুল।

 

মাছুম নিজেকে বাঁছাতে শহিদুলকে ধাক্কা দিয়ে দুরে সড়ে যায়। এসময় শহিদুল টারর্মিনালে প্রাকিং করা একটি বাসের সাথে ধাক্কা খেয়ে তার নাক দিয়ে রক্ত বের হয়। স্থানীয় শ্রমিকরা তাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করেন বলে জানা যায়। জানা গেছে, নগরীর ২৯ নং ওয়ার্ডের লুৎফর রহমান সড়কের বাসিন্দা মোঃ হানিফ হাওলাদারের ছেলে মাছুম (৩২) এর কাছ থেকে গোল্ডেন লাইন পরিবহনের কাউন্টারের কলম্যান হিসেবে চাকরী দেয়ার কথা বলে তার কাছ থেকে শহিদুল ১৩ হাজার টাকা নেন।

 

অপরদিকে মাছুমকে ১৩ হাজার টাকার বিনিময় কলম্যান হিসেবে চাকরী দেয়া হয়। এদিকে মাছুমকে প্রতিদিন ডিউটি দেয়ার কথা থাকলেও শহিদুল তাকে পাঁচ দিন পর পর ডিউটিতে যোগদান করান । ফলে ওই দিন রাতে মাছুম প্রতিদিন ডিউটি করার জন্য শহিদুলকে বলেন ।

 

শহিদুল ডিউটিতে আসতে বারং করায় মাছুম তার টাকা ফেরত চায়। এসময় শহিদুল ক্ষিপ্ত হয়ে মাছুমকে কিল ঘুষি ,চর থাপ্পর মারেন। এক পর্যায় মাছুম বাঁছার জন্য শহিদুলকে হাত দিয়ে ধাক্কা দিয়ে দুরে সড়ে যায় ।

 

বাসের সাথে শহিদুলের ধাক্কা লাগলে নাক থেকে রক্ত বের হয়। বিষয়টি ভিন্ন খাতে নেন শহিদুল। নিজের কাছে ২ লক্ষ টাকার বিষয়টি যেন হাস্যকর মনে করেন শ্রমিক নেতরা।

 

বিষয়টি নিয়ে থানা পুলিশ গড়িয়েছেন সুচতুর শহিদুল। থানা থেকে বলা হয়েছে গোল্ডেন লাইনের ম্যানেজার আহত থাকায় সে হামলাকারীদের সঠিক নাম ঠিকানা বলতে না পারায় অভিযোগ নেয়া সম্ভব হয়নি।

 

নানা ঘটনার অনুঘটক শহিদুল পুলিশের কাছে নাম বলতে পারেনি , সংবাদকর্মীদের কাছে নিজেকে জাহির করা ব্যাক্তি আক্রোশ করে কি ক্ষমতশীন দলের কাউকে বিপাকে ফেলার জন্য এমন নাটকীয়তা করেছেন ধুরান্দার শহিদুল।

 

ধারনা করা হচ্ছে নতুন ঘটনা জন্ম দিয়ে আলোচনায় আসা শহিদুল ক্ষমতাশীন দলের এক নেতাকে বিপদে ফেলার জন্যই শেবাচিমে ভর্তি হয়েছেন। নতুবা প্রাথমিক চিকিৎসা না নিয়ে শেবাচিমে ভর্তি বিষয়টি যেন রহস্য দেখা দেয়।

 

টাকা কিংবা ডিউিটি নিয়ে শ্রমিক মাছুমের সাথে ঝগড়া। সেখানে ক্ষমতাশীন দলের এক নেতার নাম বলা কতটুকু যৌতিক। এমন প্রশ্ন ঘোরপাক খাচ্ছে পুরো বাস টারর্মিনালের শ্রমিকদের মাঝে।

 

শহিদুল পটুয়াখালী জেলার আউলিয়াপুর গ্রামের মৃত নূরুল ইসলাম শিকদারের ছেলে। অভিযোগ রয়েছে, যাত্রীদের সাথে অসাধ আচারণ করেন শহিদুল।

 

কিছু দিন আগে এক শ্রমিকের পায়ে মটরসাইকেল উঠিয়ে তাকে হুমকি-ধামকি দেন শহিদুল । কাউন্টারে থাকা এক ব্যাক্তি বলেন, টিকিট বিক্রির সময় যাত্রীদের সাথে অসাধ আচারণ করেন ফলে আমাদের গাড়িতে যাত্রী অনেক কম হয়। এসব বিষয় শহিদুলকে একাধীক বার ফোন দিলে তিনি তা রিসিফ না করায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here