বিয়ের মেহমানদারী কোরবানির গোশতে করা যাবে কি?

ধর্ম ডেস্ক:মুসলিম উম্মাহর জন্য কোরবানির ঈদ প্রধানত স্রষ্টার প্রতি আনুগত্য ও স্বীয় আত্মত্যাগের মহিমায় ভাস্বর একটি বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব। এই দিনটিতে সামর্থ্যবান মুসলমানরা আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য পশু কোরবানি করে থাকেন।

এ পশু কোরবানি শুধু মহান আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টি লাভের নিয়তেই আদায় করতে হয়। এর ব্যতিক্রম হলেই কোরবানি হবে না।

কিন্তু আমাদের সমাজে অহরহ বলতে কিংবা ঘটতে দেয়া যায় যে, কোরবানি পরবর্তী ২/৩ দিনের মধ্যে বিয়েসহ অনেক বড় বড় অনুষ্ঠান উদযাপতি হয়। তাতে কোরবানির গোশতও খাবার হিসেবে পরিবেশন করা হয়। আবার অনেককে বলতে শোনা যায়, এবার গরু বড় দেখে কিনতে হবে। কোরবানির পর অনুষ্ঠান আছে।

এখন জানার বিষয় হলো- কোরবানির গোশত দিয়ে বিয়েসহ মুসলমানদের যেকোনো বড় অনুষ্ঠানের দাওয়াত খাওয়ানো কি জায়েয হবে এবং এ উদ্দেশ্যে কোরবানি দিলে কি তা বৈধ হবে?

কোরবানি শুধু মহান আল্লাহ তায়ালার জন্য। তবে কোরবানির পর এ গোশত দিয়ে যেকোনো হালাল অনুষ্ঠানে আগত দাওয়াতি মেহমানকে খাওয়ানো যাবে। তাতে কোরবানির কোনো ক্ষতি হবে না। তবে শর্ত হলো- অনুষ্ঠান আয়োজনের উদ্দেশ্যে কোরবানি করা যাবে না। কারণ কোরবানি দিতে হবে মহান রাব্বুল আরামিন আল্লাহ তায়ালার জন্য।

কোরবানির উদ্দেশ্য ছাড়া বিয়ে কিংবা অন্য কোনো অনুষ্ঠান আয়োজনের উদ্দেশ্যে কোরবানি দিলে তা বৈধ হবে না।

ইয়া রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালা! সব মুসলিম উম্মাহকে একমাত্র আপনার সন্তুষ্টি লাভের জন্য কোরবানি দেয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here