জেনে নিন ‘কসম’ খাওয়ার বিধান পর্ব-১

ধর্ম ডেস্ক:আমাদের অনেককেই দেখা যায় মায়ের কসম, বাবার কসম, পবিত্র কোরআন ছুঁয়ে, মসজিদ ছুঁয়ে, সন্তানের মাথায় হাত রেখে, এছাড়াও অনেক ভাবে কসম করতে দেখা যায়।

অথচ যে ব্যক্তি মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালা ব্যতীত অন্য কোনো সত্তা বা বস্তুর নামে কসম বা শপথ করে সে মূলত আল্লাহর সম্মান ও অধিকারে ওই সত্তাকে শরিক ও অংশীদার করল। এজন্য এটা শিরক হবে। তাছাড়া আল্লাহর নামে মিথ্যা কসম করা কবিরা গুনাহ, তবে তা শিরক নয়।

যারা এই ভুলগুলো করেছেন তাদের আজকেই ভুলগুলোর জন্য তওবা করে মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।

আর মহান আল্লাহকে বলতে হবে জিবনেও আর আমি এইসব কসম করবো না। যদি সত্যি সত্যি কোনো ব্যাপারে আপনি সত্যবাদী হন তাহলে শুধুমাত্র ‘আল্লাহ কসম’ করবেন।

সেটা যেন সত্যি বিষয়ে হয়, নতুবা আপনি কবিরা গুনাহ করলেন; যেটা তওবা ছাড়া ক্ষমা হবে না এবং এর জন্য কাফফারা দিতে হবে।

কসম প্রসঙ্গে প্রিয়নবী হজরত মুহম্মাদ (সা.) বলেন,

‘যে বেক্তি আল্লাহ ব্যাতিত অন্যের নামে কসম করে সে শিরক করলো।’ (হাদিস: তিরমিজি, আবুদাউদ, মিশকাত হা/২৯৬)।

আল্লাহ তায়ালা আমাদের ভুলগুলোকে ক্ষমা করুন। আমিন। চলবে…

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here