কবিতা: প্রশ্ন করা হলে

প্রশ্ন করা হলে

তানজিলা রহমান মৌ

 

বলতে পারবে,

প্রকৃতি কখন তার নিজ রূপে

নিজেকে সজ্জিত করে?

হঠাৎ এমনটা যদি কেউ আমাকে প্রশ্ন করে।

প্রতিত্তরে কখনও বসন্ত বলব না।

আমি বলব বর্ষাকাল! কারণ বসন্তের

আকাশ আজও আমাকে মুগ্ধ করতে

পারেনি।

বসন্তের আকাশের সেই রংধনুর

আভা আজও আমাকে একটুকুও

স্বত্বি দিতে পারেনি। বর্ষার আকাশ

আমাকে যতটুকু স্বত্বি দিতে পেরেছে এযাবতকাল।

ফের যদি কেউ আমায় জিজ্ঞেস করে।

প্রকৃতির মনোমুগ্ধকর দৃশ্য কখন দেখা যায়?

একদমে আমি আবারও উত্তর দিবো,

বর্ষাকাল! কারণ বর্ষায় আমি মেঘ ও

রোদের খেলা দেখেছি,

দেখেছি মেঘ কিভাবে সূর্যকে আলিঙ্গন করে।

দেখেছি মেঘলা আকাশে কিভাবে নয়াসৃষ্টি ঝরে।

যা আমি বসন্তের আকাশে আজও দেখিনি।

যদি প্রশ্ন করা হয়! আমি বর্ষাকে এতো পছন্দ করি কেন?

আমি সরল কণ্ঠে উত্তর দিবো,

বর্ষার ভরা নদী আর রাঙা গোধূলীর মাঝে

যে প্রেম আমি অনুভব করেছি,

সে প্রেম বসন্তের কৃষ্ণচূড়ার মাঝে

আমি আজও দেখিনি।

জানতে চাও!

আমি বারবার কেন বর্ষার কথাই বলি?

কারণ বর্ষার কদম,

বকুলদের সুবাসে আমি যতোটা আকুল হয়েছি।

তা আমায় বসন্তের কৃষ্ণচূড়া,

গাঁদারা করতে পারেনি।

বসন্ত ঋতুরাজ হওয়া সত্ত্বেও

বর্ষাই আমার মনকে বারবার পরিপুষ্ট করেছে।

বসন্তের কোকিলের সুমধুর কণ্ঠ

আমাকে অতটা আকৃষ্ট করে নাই

,যতোটা আকৃষ্ট আমি

বর্ষার রাতে ঝিঁ ঝিঁ পোকার সাথে তাল মিলিয়ে

ব্যাঙের ঘ্যাঙর ঘ্যাঙ শব্দে নিজেকে বিলিয়েছি।

আমি যতোটা বর্ষার বৃষ্টির সাথে

কেঁদে কেঁদে নিজস্ব দুঃখ মুছে দিতে পেরেছি।

অজস্র চোখের দৃষ্টি থাকা সত্ত্বেও

আজও কেউ দেখেনি আমি যে কেঁদেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here