করোনায় মৃত মায়ের মাগফিরাত কামনায় প্লাজমা দিলেন ভাই-বোন

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর মুখে ছিলেন গর্ভধারিণী মা। এ কঠিন সময়ে ঝুঁকি নিয়েই মায়ের সেবায় নিয়োজিত হয়েছিলেন ভাই-বোন। কিন্তু মাকে বাঁচাতে পারেননি তারা। মায়ের সেবা করতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হন ভাই-বোন। এখন মায়ের মাগফিরাত কামনায় প্লাজমা দিলেন করোনা থেকে সম্পূর্ণ সুস্থ ভাই-বোন।

জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের ভূমি পল্লীতে দুই বছর ধরে পরিবারসহ বসবাস করা হাসিনা নুরের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। গত ১ মে মুগদা হাসপাতালে তিনি মারা যান। হাসিনা নূরের লাশ সিদ্ধিরগঞ্জের কবরস্থানে দাফন করতে বাধা দেয় স্থানীয়রা।

পরে হাসিনার ছেলে নুরুল আমিন মাসুম তাদের সাবেক বাড়ি মাসদাইরের কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। পরে খোরশেদ ও তার টিম হাসিনাকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কেন্দ্রীয় কবরস্থান মাসাদাইরে দাফন করে।

এদিকে মাকে সেবা করতে গিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন দুই সন্তান নুরুল আমিন মাসুম ও তাসনীমা নুর। তবে চিকিৎসা শেষে সুস্থ হন দুইজনই। তাই মায়ের মাগফিরাত কামনায় ভাই-বোন খোরশেদের প্লাজমা টিমে প্লাজমা দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

গত ৯ জুন আলী আজগর হাসপাতালে নারায়ণগঞ্জের দেওভোগ ভূইয়ারবাগ নিবাসী আবুল কালামকে ৪০০ এম এল প্লাজমা ডোনেট করেন নুরুল আমিন মাসুম। আর বৃহস্পতিবার ধানমন্ডি নিবাসী মীর হোসাইন চৌধুরীকে গ্রিন লাইফ হাসপাতালে ২০০ এম এল প্লাজমা দান করেন তাসনীমা নুর।

দুই ভাই বোন প্লাজমা প্রদান শেষে বলেন, করোনায় আক্রান্ত মাকে বাচাঁতে পারিনি আমরা। তবে আমাদের দেয়া প্লাজমায় কোনো মানুষের জীবন রক্ষা পেলে মা হারানোর কষ্ট কিছুটা লাঘব হবে।

মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেন, করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা সুস্থ হলে প্লাজমা দিতে পারেন। এতে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী করোনাজয় করতে পারেন। তাই প্লাজমা দিন-জীবন বাঁচান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here