জাদুর মতো ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখবে আমপাতা!

নিউজ ডেস্কঃসবার কাছেই ডায়াবেটিস অতি পরিচিত একটি রোগের নাম। ছোট থেকে বড়, নারী কিংবা পুরুষ উভয়ই এই রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে। এই রোগের অন্যতম কারণ হচ্ছে অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস। তাছাড়া বংশগত কারণেও এই রোগ হয়ে থাকে।

স্বাভাবিকের চেয়ে রক্তে বেশি শর্করা বা সুগার থাকলে তাকে বলা হয় ডায়াবেটিস মেলাইটাস বা সংক্ষেপে ডায়াবেটিস। বাংলায় এই রোগকেই মধুমেহ বলা হয়। তবে ডায়াবেটিস পুরোপুরি নিরাময় অযোগ্য হলেও একে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। একটু সাবধান থাকলে ও রুটিন মেনে চললে ডায়াবেটিস রোগী শারীরিকভাবে ভালো থাকে।

ল্যানসেট ডায়াবেটিস অ্যান্ড এন্ডোক্রিনোলজি নামক জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণা বলছে, বিশ্বজুড়ে বর্তমানে ৪০ কোটি ৬০ লাখ মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। ২০৩০ সালে এই সংখ্যাটি ৫১ কোটি ১০ লাখে পৌঁছাবে। রোগটি থেকে মুক্তি পেতে চীনের প্রাচীন এক চিকিৎসা পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে ডায়াবেটিস থেকে মুক্তি মিলবে সহজেই।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে নানা রকম ওষুধ খেয়ে থাকেন রোগীরা। তবে জানলে অবাক হবেন, আমপাতা খেয়েও জাদুর মতোই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব! চলুন জেনে নেয়া যাক বিস্তারিত-

> কয়েক শতাব্দী ধরে ডায়াবেটিস ও অ্যাজমা রোগের চিকিৎসায় আমপাতা ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এই সবুজ পাতায় এমন কিছু ভিটামিন ও পুষ্টি উপাদান রয়েছে যা আপনার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করবে।

> আমপাতা শরীরে ইনসুলিন উৎপাদন ও গ্লুকোজ প্রবাহ বৃদ্ধি এবং রক্তে সুগারের পরিমাণ স্থিতিশীল রাখে। আম পাতায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্যাকটিন, ভিটামিন-সি ও ফাইবার, যা ক্ষতিকারক কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়।

> ঘন ঘন প্রস্রাব বন্ধ, ওজন কমাতে ও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আমপাতা খুবই কার্যকর। আমপাতায় রয়েছে উচ্চমাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস যা আপনার শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দেবে। এলার্জি প্রতিরোধেও এটা সমান কার্যকর।

আমপাতা যেভাবে খাবেন

সাধারণভাবে ১০ থেকে ১৫টি সতেজ আমপাতা নিয়ে পরিষ্কার পানিতে সিদ্ধ করুন। সারারাত পাতাগুলো পানিতে রেখে দিন। সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে আমপাতার পানি পান করুন। এই আমপাতা খেলে দ্রুত ফল পাবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here