বরিশালে ৫ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

নিজস্ব প্রতিনিধিঃকরোনা সংক্রামন এড়াতে জনসচেতনতা বৃদ্ধি, গনজমায়েত রোধ এবং শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে বরিশালে ও পৃথক দুটি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়েছে।

এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত বিভিন্ন স্থানে জটলা ছত্রভঙ্গ ও শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে জনগনের উদ্দেশে নানা পরামর্শমূলক দিকনির্দেশনা দেন। অপ্রয়োজনে খোলা রাখা দোকান বন্ধ ও ৫টি প্রতিষ্ঠানকে ২৪ হাজার টাকা জরিমানা করা ছাড়াও নগরীর কাশীপুরে ওএমএস চাল বিক্রিতে অনিয়ম বন্ধ করে।

মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ দস্তগীর ও আতাউর রাব্বীর নেতৃত্বে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহাতায়তার নগরীর বিভিন্ন এলাকায় এই অভিযান পরিচালিত হয়।

আতাউর রাব্বী জানান, সরকার মুদী ও ওষুধের দোকান ব্যতিত অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু এই নির্দেশ অমান্য করে নগরীর কাটপট্টি ও লাইন রোডে বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখে শারীরিক দূরত্ব অনুসরন না করে গনজমায়েত করা হচ্ছিলো।

এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত জনগনকে বুঝিয়ে ছত্রভঙ্গ ও অপ্রয়োজনী দোকান বন্ধ করে দেন। একই সঙ্গে সরকারি নির্দেশ অমান্য করায় ৫টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে ২৪ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

মারুফ দস্তগীরের ভ্রাম্যমাণ আদালত নগরীর নথুল্লাবাদ, চৌমাথা, নতুন বাজার, হাসপাতাল রোড, বিএম কলেজ রোড, সদর রোড, সিএন্ডবি রোড ও বান্দ রোডে অভিযান পরিচালনাকালে অপ্রয়োজনীয় জনসমাগম ছত্রভঙ্গ এবং মুদী ও ওষুধ ব্যতিত অন্যান্য দোকান বন্ধ করে দেন।

করোনা সংক্রামণ এড়াতে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে সবাইকে নিজ নিজ বাসায় থাকতে উদ্বুদ্ধ করেন। নগরীর কাশীপুরে খাদ্য বিভাগের ১০ টাকা কেজি দরের চাল বিক্রি (ওএমএস) কার্যক্রমে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদ আহমেদের কৌশলে বাঁধা সৃস্টির অভিযোগ পেয়ে সেখানে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ সময় কাউন্সিলরকে সরকারি নীতি বিরোধী কার্যক্রম থেকে বিরত থেকে জনগণকে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় ও এমএস চাল কিনতে দেওয়ার নির্দেশ দেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ দস্তগীর বলেন, ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদ আহমেদ তার স্লিপ ছাড়া কারোর কাছে ১০ টাকা কেজি দরের চাল বিক্রি না করতে ওএমএস ডিলারকে নিষেধ এবং ক্রেতাদের চাল ক্রয়ের টাকা তিনি নিজস্ব তহবিল থেকে দেয়ার কথা বলেন। পরে ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে তার স্লিপ প্রথা বাতিলের নির্দেশ দেন এবং টাকা দিলে ক্রেতাদের কাছে দিতে বলেন।

এদিকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা ছাড়াও বরিশালে সরকারি নির্দেশ বাস্তাবায়নে সেনা বাহিনী, র‌্যাব ও পুলিশের জোড়দার টহল চলছে। ট্রাফিক পুলিশ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট স্থাপন করে অপ্রয়োজনীয় যানবাহন আটকে দিচ্ছে। তারা প্রয়োজান ছাড়া কাউকে ঘর থেকে বের না হতে নিরুৎসাহিত করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here