বরিশাল মহানগর কলেজের প্রভাষক মোশারেফ হোসেনের সনদপত্র জাল !

নিউজ ডেস্ক :স্অবশেষে বরিশাল মহানগর কলেজের শিক্ষক মোশারেফ হোসেনের সার্টিফিকেট জাল বলে বরিশাল জেলা শিক্ষা অফিসারকে ২০২০সালের গত ৯ই মার্চ এ ৪২১ নং স্মারকে লিখিত ভাবে জানান বগুড়ার (নেকটার) উপ-পরিচালক (চঃ দাঃ) মুহাম্মদ মাহমুদুর রহমান। শিক্ষক মোশারেফ হোসেন মহানগর কলেজে নিয়োগের সময় জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গবেষনা একাডেমী,নট্রামস,বগুড়া,যাহার সিরিয়াল নং-১৬৬৪২,নিবন্ধন নং-১৭৮২১ এর একখানা সনদপত্র দাখিল করেছেন। যা ভূয়া এবং জাল বলে প্রমানিত হয়।

উল্লেখ মোশারেফ হোসেন নামের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে জাল-জালিয়াতী সনদ-পত্র দিয়ে প্রভাষক পদে চাকুরীতে নিয়োগ পাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এই বিষয় কলেজের সাবেক ছাত্র ইমরান হাওলাদার বর্তমান মহানগর কলেজ সভাপতি ও কাউন্সিলর আনিছুর রহমান দুলালের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। মহানগর কলেজ ২০১৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে উত্তীর্ণ হওয়া সাবেক ছাত্রের দেয়া অভিযোগ পত্রে জানা গেছে বরিশাল মহানগর কলেজে সাচিবিক বিদ্যা ও অফিস ব্যবস্থাপনা বিষয়ের প্রভাষক পদে তাকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

তিনি নিয়োগকালীন সময়ে জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গভেষনা একাডেমী,নট্রামস,বগুড়া,যাহার সিরিয়াল নং-১৬৬৪২,নিবন্ধন নং-১৭৮২১ এর একখানা সনদপত্র কলেজে দাখিল করেছেন। উক্ত দাখিল কৃত সনদপত্রটি বগুড়া নট্রামস জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গবেষনা একাডেমির নয় বলে অভিযোগ রয়েছে। ওই প্রভাষকের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক প্রদত্ত বি.এম কলেজ থেকে অংশগ্রহনকৃত এম.কম-১৯৯৬,রোল নং-২১৩৩,নিবন্ধন নং-১০৫০২৭,সেশন-১৯৯৫-৯৬ সনদ পত্রটিও সন্দেহের মধ্যে রয়েছে বলে সভাপতির বরাবর দাখিলকৃত আবেদনে অভিযোগ করেন ।

এ ব্যাপারে মহানগর কলেজ সভাপতি ও কাউন্সিলর আনিছুর রহমান দুলালের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমার কাছে প্রাক্তন শিক্ষার্থী মোঃ এমরান হাওলাদার একটি অভিযোগ দিয়েছে। এই অভিযোগ জালিয়াতি কিংবা প্রতারনার ব্যাপারে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

এ বিষয় কলেজের অধ্যক্ষ খাইরুল আলমের সাথে ০১৭১২-০০০৩৭ মোবাইল নম্বরে একাধিক বার যোগাযোগ করলে ফোন রিসিফ করেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here