শর্তের বেড়াজালে বন্দি সরোয়ার-কামালের ঐক্য

নিজস্ব প্রতিনিধিঃবরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি থেকে প্রার্থী হয়েছেন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও বরিশাল মহানগর বিএনপির সভাপতি মজিবর রহমান সরোয়ার। তার পাশাপাশি দল থেকে আরো কয়েকজন মনোনয়ন প্রত্যাশা করেছিলেন। কিন্তু সরোয়ারকে ধানের শীষ তুলে দিয়েছে কেন্দ্রীয় বিএনপি। দল থেকে মনোনয়ন না পেয়ে অন্য কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী না হলেও সরোয়ারকে প্রার্থী মেনে নিতে পারছে না বিএনপির একাংশ। কারণ হিসেবে তারা বলছেন, সব আলোচিত নির্বাচনে একজনই অংশ নেবেন, এভাবে অন্যদের বঞ্চিত করা হচ্ছে। এবারের নির্বাচনে দল থেকে মনোনয়ন চেয়ে ব্যর্থ হওয়ার তালিকায় রয়েছে বর্তমান মেয়র আহসান হাবিব কামালের নামও।

তিনি ঢাকায় গিয়ে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বরিশালে ফিরে দল সমর্থিত প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ারের সাথে কোন নির্বাচনী কর্মকান্ডে অংশগ্রহন করেননি। বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চাঁন মনোনয়ন চেয়ে ব্যর্থ হয়ে দলের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করা থেকে বিরত ছিলেন। সরোয়ারের এই মনোনয়নে স্থানীয় বিএনপির সব নেতা খুশি,এমনও না। বারবার সরোয়ার কেন, এ প্রশ্ন উঠে খোদ বিএনপিতেই। সরোয়ারের বাইরে বিএনপির অন্য কেউ মনোনয়নপত্র জমা দেননি, তবে সরোয়ার রিটানির্ং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে গেলেও তার সঙ্গে ছিলেন না অন্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।

গত ২৮ জুন সরোয়ার যখন মনোনয়নপত্র জমা দেন তখন এবায়দুল হক চাঁন, বিলকিস আক্তার জাহান শিরিন ও বর্তমান মেয়র আহসান হাবিব কামালের অনুপস্থিতি নিয়ে কথা উঠে বিএনপিতে। এরপর চাঁন ও শিরিনকে কাছে টানার চেষ্ঠা করে সফল হন সরোয়ার। যদিও বরিশালে এসে একটি কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে আবার ঢাকায় চলে গেছেন বিলকিস জাহান শিরিন। সর্বশেষ প্রতীক বরাদ্দের দিনে প্রার্থী সরোয়ারের সাথে নির্বাচনী কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়েছিলেন এবায়দুল হক চাঁন। এবারও অনুপস্থিত ছিলেন শিরিন ও মেয়র আহসান হাবিব কামাল। বিএনপির একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, মেয়র আহসান হাবিব কামাল সরোয়ারের মনোনয়ন প্রাপ্তিতে খুশি নন।

দল থেকে পুনরায় মনোনয়ন চেয়ে না পাওয়ার ব্যর্থতা নিয়ে কামাল বরিশালে এসে নিয়মিত বিরতিতে নগর ভবনে গিয়ে তিনি দাপ্তরিক কাজ করছেন। মনোনয়ন জামাদানসহ ঘরোয়া কোন বৈঠকেও তাকে দেখা যায়নি। এনিয়ে দলীয় ফোরামের পাশাপাশি নগরজুড়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে। এই আলোচনার মধ্যেই মঙ্গলবার রাতে নগরীর কালুশাহ সড়কের কামালের বাসভবনে যান প্রার্থী সরোয়ার। একান্তে তারা কিছু সময় অতিবাহিত করলেও তাদের আলোচনার বিষয়ে কিছু জানা যায়নি। তবে অসমর্থিত একটি সূত্র জানায় আলোচনার বেশীরভাগ সময় মেয়র কামাল নানা অভিযোগ তুলে এর কারন জানতে চান সরোয়ারের কাছে। কামাল প্রতিত্তুর না করে শুধু শোনেন। অন্য আরেকটি সূত্র জানায় আলোচনার এক পর্যায়ে কামাল সরোয়ারকে সমর্থন দেয়ার বিষয়ে তাকে মহানগর বিএনপির সভাপতি করার শর্ত জুড়ে দেন। এবিষয়ে কোন মন্তব্য না করে সরোয়ার কামালের বাসা ত্যাগ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here