বুশের সহকারীকে বিচারপতি পদে মনোনয়ন ট্রাম্পের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের সহকারী ও বিচারক ব্রেট কাভানাফকে দেশটির সর্বোচ্চ আদালতের বিচারক মনোনীত করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। হোয়াইট হাউজে দেওয়া এক ঘোষণায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কাভানাফের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

দেশের কলম্বিয়া জেলার জেলা জজ কাভানাফ দেশটির সাবেক প্রেসিডন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের একান্ত সহকারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এই বিচারপতির নিয়োগকে ট্রাম্প প্রশাসনের আমলে গুরুত্বপূর্ণ বলে ধরা হচ্ছে। বিশেষ করে গর্ভপাত, অস্ত্র এবং অভিবাসী আইনে ট্রাম্প বারবার উচ্চ আদালতে আটকে যাচ্ছেন। এই বিচারপতির নিয়োগের মাধ্যমে রিপাবলিকানরা কিছু সুবিধা পাবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ট্রাম্প প্রশাসনের আমলে উচ্চ আদালতে দ্বিতীয় বিচারপতি হিসেবে তিনি নিয়োগ পেতে যাচ্ছেন। ট্রাম্প বলেন, বিচারপতি হিসেবে তিনি বিশ্বাসযোগ্য, যোগ্য এবং তিনি ইতোমধ্যে তার নিরপেক্ষতার প্রমাণ রেখেছেন। হোয়াইট হাউজে দেওয়া ভাষণে প্রেসিডেন্ট বলেন,‘শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত আপনারা চিন্তা করতে থাকেন। চমক আসছে।’

এখন সিনেটে অনুমোদন পেলেই বিচারপতি হিসেবে দেশটির সর্বোচ্চ আদালতে বসতে যাচ্ছেন তিনি। দেশটির ৮১ বছর বয়সী বিচারপতি অ্যান্থনিও কেনেডি স্বেচ্ছায় অবসরে যাওয়ার পরই উচ্চ আদালতের নয় বিচারপতির একটি আসন খালি হয়।

এদিকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মনোনয়ন লাভের পরই দেওয়া এক বিবৃতিতে কাভানাফ (৫৩) ট্রাম্পকে ধন্যবাদ জানান। বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের কোনো প্রেসিডেন্ট হিসেবে এই প্রথম দেখলাম উচ্চ আদালতের বিচারক নিয়োগে এত সংখ্যক মানুষের পরামর্শ নেওয়া হয়েছে। যা অতীতের সব রেকর্ডকে ভেঙ্গে দিয়েছে।

বিচারপতি এই কাভানাফ কে?

২০০৬ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের কলম্বিয়া অঙ্গরাজ্যের আপিল বিভাগের বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এর আগে তিনি হোয়াইট হাউজে প্রেসিডেন্ট বুশের সহকারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

১৯৯০ সালে ডেমোক্রেটিক পার্টির সাবেক প্রধান ও প্রেসিডেন্ট ব্লিন ক্লিনটনের বিরুদ্ধে উঠা গুরুতর অভিযোগের তদন্ত করতে গঠিত স্বাধীন কমিশনেরও সদস্য ছিলেন তিনি। তিনি সাবেক বিচারপতি জাস্টিস কেনেডির কেরানির দায়িত্বও পালন করেছেন। এদিকে ২০০৯ সালে কাভানাফ একটি আইন লিখেন। সেখানে তিনি বলেন, প্রেসিডেন্টদের বিরুদ্ধে কোনো ধরণের ফৌজদিারি আদালতের তদন্ত করা যাবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here