কাল গাজীপুর সিটিতে ভোট

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ রাত পোহালেই গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোট গ্রহণ। ভোটার ও আয়তন বিবেচনায় দেশের সবচেয়ে বড় এ সিটি কর্পোরেশনে মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ চলবে।
সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর নির্বাচিত করার লক্ষ্যে ভোট দিতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন গাজীপুরবাসী। রোববার শেষ মুহূর্তের প্রচার চালিয়েছেন মেয়র, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ও সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীরা। এখন জয় পেতে নানামুখী হিসাব-নিকাশ কষছেন তারা। এদিকে নির্বাচনের শেষ সময়ের প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম গুছিয়ে আনছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।
এবারই প্রথম ভোট গ্রহণ পরিস্থিতির তথ্য তাৎক্ষণিক জানার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্রিসাইডিং কর্মকর্তারা মোবাইল এসএমএসের মাধ্যমে দু’ঘণ্টা পরপর প্রয়োজনীয় সার্বিক তথ্য কমিশন সচিবালয়কে জানাবেন। এ ছাড়া নির্বাচনের নিরাপত্তায় মাঠে টহল দিচ্ছেন কয়েক হাজার বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ সদস্য। আচরণবিধি দেখভালে নির্বাচনী এলাকায় রয়েছেন নির্বাহী ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট।
স্থানীয় ভোটারদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে সাতজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও মূল লড়াই হবে নৌকা ও ধানের শীষ প্রতীকের মধ্যে। আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম ও বিএনপির মো. হাসান উদ্দিন সরকার- এ দুই প্রার্থীকে ঘিরেই চলছে যত আলোচনা। পাশাপাশি জাতীয় রাজনীতি ও স্থানীয় উন্নয়ন ইস্যু উঠে এসেছে এ নির্বাচনী প্রচারে।
তফসিল ঘোষণার পর থেকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের প্রচার-প্রচারণায় মুখর হয়ে ওঠে গাজীপুর। ভোটের জনপ্রিয়তার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে সম্ভাব্য সব কৌশল অবলম্বন করছে দল দুটি।
নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি ভালো ও উৎসবমুখর রয়েছে বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মণ্ডল।

ভোটারদের কেন্দ্রে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন, ভোটের জন্য দীর্ঘদিন ধরে মুখিয়ে আছেন গাজীপুরবাসী। ভোট গ্রহণের সব প্রস্তুতি শেষ করেছি। সোমবার প্রতিটি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণের মালামাল পৌঁছে যাবে। ভোটারদের নিরাপত্তায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রায় সাড়ে ১০ হাজার সদস্য কাজ করবেন। তিনি বলেন, কোনো শঙ্কা বা ভয় নয়, নির্ভয়ে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেবেন।

সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সম্পর্কে গাজীপুরের পুলিশ সুপার মো. হারুন-অর-রশীদ বলেন, তফসিল ঘোষণার পর থেকে এ পর্যন্ত কোনো প্রকার সহিংসতা গাজীপুরে হয়নি। আশা করি ভোটের দিন ২৬ জুন ও এর আগে-পরে কোনো সহিংসতা হবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here