প্রতিবন্ধী চুমকির পাশে দাঁড়াল ‘হৃদয়ে নড়াইল’

নড়াইল প্রতিনিধি :এতিম মানসিক প্রতিবন্ধী কিশোরী চুমকি। ১০বছর পূর্বে তার বাবা মারা যায়। মা থেকেও নেই। বাবা মারা যাবার পর মা অন্যত্র বিয়ে করে সেখানে ঘর করছে। মেয়ের আর খোঁজ-খবর নেয় না। প্রতিবন্ধী এই মেয়ে কখনও বাবা-মায়ের আদর সোহাগ পায়নি।

ছোট বেলা থেকেই অযত্ন-অবহেলায় বস্তিতে বেড়ে উঠেছে। প্রকৃতির নিয়মেই সে এখন কিশোরী। অভাগা চুমকির পিতার বাড়ি নড়াইল শহর আউড়িয়া ইউনিয়নের সীমাখালী গ্রামে। এখন সেখানে তাদের আপনজন না থাকায় নড়াইল শহরের গো-হাটখোলা বস্তিতে দু:সম্পর্কের এক আত্মীয়ের ঘরে থাকে।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ‘হৃদয়ে নড়াইল’-এর কয়েক বন্ধু ‘কিশোরী এই মেয়েটিকে রক্ষা করুন’ এ ধরনের একটি পোষ্ট দেয়ার পর কয়েকজন জন দরদী মানুষ তার চিকিৎসাসহ সার্বিক দেখাশোনার দায়িত্বে এগিয়ে এসেছেন।

‘হৃদয়ে নড়াইল’ এর অ্যাডমিন এফ.এম আমিরুল ইসলাম লিটু জানান, মেয়েটির চিকিৎসা হবে ঢাকা মানসিক হাসপাতালে। তাকে আর্থিকভাবে সাহায্য করার জন্য এগিয়ে এসেছেন ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ডিএমডি মাহবুব ঢালী, শিল্পতি আমিনুর রহমান হিমু, আমেরিকা প্রবাসী তিনজন মানবদরদী এবং নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন। সার্বিক দেখাশোনা এবং চিকিৎসার দায়িত্বে থাকবেন যমুনা ব্যাংকের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা শামীম আহমেদ।

শুক্রবার সকালে নড়াইল চৌরাস্তা থেকে তাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রওনা হয়েছেন ব্যাংকার শামীম আহমেদসহ ১০ জনের একটি দল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ডিসি মো. এমদাদুল হক চৌধুরী, এসপি মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম, নড়াইল প্রেস ক্লাবের সভাপতি অ্যাডভোকেট আলমগীর সিদ্দিকী, সাধারণ সম্পাদক মীর্জা নজরুল ইসলাম, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক শরফুল আলম লিটু, হৃদয়ে নড়াইল এর অ্যাডমিন এফএম আমিরুল ইসলাম লিট প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here