জমির দখল নিয়ে দুই পরিবারে চরম উত্তেজনা

বাগমারা প্রতিনিধিঃ রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার তাহেরপুর পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মাষ্টারপাড়া মহল্লায় হিন্দু দুই পরিবারের মধ্যে জমি দখলকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা চলছে। যেকোন সময় সংঘর্ষের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এর আগে গত ১৩ জুন ওই জমি দখল নিয়ে মারপিটের ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বাগমারার তাহেরপুর মৌজার জেএল নং ১৫৩ এর (সিএস) রেকর্ডীয় মালিক রামচন্দ্র সরকার এবং (এসএ) খতিয়ান নং ২৬৬ স্বত্বের মালিক তার দুই পুত্র কার্ত্তিক চন্দ্র সরকার ও সুবোধচন্দ্র সরকার। দুই সহদর ওই জমি ভোগ-দখল করা অবস্থায় সুবোধ চন্দ্র সরকার তার স্ত্রী ও কন্যাদের রেখে মৃত্যুবরন করেন। ফলে সুবোধ চন্দ্রের কোন পুত্র সন্তান না থাকায় হিন্দু ভূমি আইন অনুযায়ী জমির বৈধ ওয়ারিশ হন তার ভাই এর দুই সন্তান রঞ্জিত সরকার ও বাচ্চু সরকার।এরপর তারা ভোগ-দখল করা অবস্থায় (আরএস) রেকর্ডের জরীপ কাজ আরম্ভ হলে তাতে সুবোধের স্ত্রী মায়া রানী দাসী চতুরতার সাথে তার স্বামীর অংশ ৩.৫ শতাংশ তার নামে লিপিবদ্ধ করান। এবং আর এস রেকর্ড বলে ওই সম্পত্তি তার মেয়ে কল্পনা রানী দাসীর নামে দলিল করে দেন মূলত এখান থেকেই দুই পক্ষের দ্বন্দ-বিবাদ রুপ নিতে শুরু করে। কল্পনা রানীর নামে দলিল থাকলেও এসএ রেকর্ড অনুযায়ী বৈধ মালিক রঞ্জিত ও বাচ্চু সরকার দীর্ঘদিন ধরে ভোগ দখল করে আসছিল। এরই এক পর্যায় গত ৯ জুন কল্পনা ও তার স্বামী স্থানীয়দের সহায়তায় ওই জমিতে একটি মাটির ঘরসহ ফাঁকা কিছু জায়গা টিনের বেড়া দিয়ে ঘিরে ফেলে। ১৩ জুন বাচ্চু ও রঞ্জিত তাদের জায়গা পুনরুদ্ধারে সমর্থ হন।

কল্পনার স্বামী বিরেন দাস জানান, আমরা গত ৯ জুন টিন দিয়ে ওই জমিতে প্রাচীর দেই এর চারদিন পর ১৩ জুন রঞ্জিত এর ছেলে ভাড়াটিয়া বাহিনী এনে আমাদের দেওয়া প্রাচীরটি ভেঙ্গে দেয় এবং আমার স্ত্রীকে মারধর করে।

প্রতিবেশী জয় রাহা বলেন, বিরেন দাসের ছেলে বিপ্লব পুলিশে চাকুরি করার সুবাদে বাড়তি ক্ষমতা প্রদর্শনের লক্ষ্যে ওই জায়গা দখলের চেষ্টা করে। কিন্তু দখলে ব্যর্থ হয়ে ‘পুলিশের জমি দখল করা হয়েছে’ মর্মে এলাকায় ও কিছু মিডিয়ায় অপপ্রচার চালানো হয়। প্রকৃতপক্ষে ওই জমির বৈধ মালিক বাচ্চু ও রঞ্জিত সরকার।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাচ্চু ও রঞ্জিত ওয়ারিশ সূত্রে প্রাপ্ত জমি দখলের চেষ্টা চালানো হয়। যেখানে বাচ্চু একটি কাঁচা ঘরে কাঠ রেখে দীর্ঘদিন যাবত ফার্নিচার ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে।

তাহেরপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (এসআই) লুৎফর রহমান জানান, সেখানে জমির মালিকানা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে খবর পেয়ে সাথে সাথে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে যাই এবং তাদেরকে শান্ত করি। এখনো দুই পরিবারের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। পুলিশ বিষয়টি নজরদারিতে রেখেছে বলে জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here