সাপাহার-খঞ্জনপুর সড়ক জনদুর্ভোগে পরিনত

নওগাঁ প্রতিনিধিঃ নওগাঁর সাপাহার উপজেলা সদর হতে থানা রোড হয়ে খঞ্জনপুর বিজিবি ক্যাম্প পর্যন্ত প্রায় ৫কিমিঃ জনগুরুত্বপূর্ন রাস্তাটি সংস্কার কাজে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সংস্কার কাজ বাস্তবায়নে কচ্ছপগতির কারণে জনদুর্ভোগে পরিনত হয়েছে।
খঞ্জনপুর বিজিবি ক্যাম্প ও উপজেলার শিরন্টি, পাতাড়ী ও আইহাই ইউনিয়নের সাথে উপজেলা সদরের একমাত্র যোগাযোগ স্থাপনকারী জনগুরুত্বপূর্ন রাস্তাটি ১৯৯৬সালে এলাকাবাসীর চলাচলের প্রতি গুরুত্ব দিে কার্পেটিং করা হয়। এর পর দীর্ঘ দিন রাস্তাটি হাজারো খানা খন্দকে বেহাল হয়ে পড়ে থাকলেও কারো নজর পড়েনি । এলাকার জনগন অতি কষ্টে ওই পথে চলা ফেরা করত। এমনি অবস্থায় রাস্তাটির বিষয়ে উপজেলা সদরের সংশ্লিষ্ট কয়েকটি দপ্তরে খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায় সে আমলে প্রথম রাস্তাটি সড়ক ও জনপদ বিভাগ হতে করা হয়ে ছিল কিন্ত তখন রাস্তাটি কোন দপ্তরে তালিকাভুক্ত হয়নি ফলে পরবর্তীতে কোন দপ্তরই রাস্তাটির দায়িত্ব নিতে চায়না। শেষ পর্যন্ত রাস্তাটি এলজিইডি বিভাগ তাদের দায়িত্বে নিয়ে কয়েক মাস পূর্বে মেরামতের কাজ শুরু করে। নওগাঁর এক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওই রাস্তা মেরামতের দায়িত্ব পান। বেশ কিছু দিন পূর্বে তারা রাস্তাটির মাটি কেটে উলোট পালট করে পুরো রাস্তায় খোয়া বিছিয়ে দিলেও সেই খোয়াগুলি রোলার দিয়ে সমান করেনি। যার ফলে রাস্তা মেরামতের পূর্বে যত কষ্ট করে জনগন ওই পথে চলা চল করত এখন খোয়া ও পাথর বিছিয়ে কোন কাজ না করার কারণে অতিরিক্ত কষ্ট নিয়ে সেই পথে চলা চল করছে। অনেকেই অতি কষ্টে ওই পথে না চলে কম পক্ষে আরোও ৫কিঃমিঃ পথ ঘুরে উপজেলা সদরের সাথে আসছে। রাস্তাটি যেন এখন জনগনের গোদের উপর বিষ ফোঁড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাস্তা খননের সময় ঠিকাদারের লোকজন বলেছিল পবিত্র ঈদুল ফিতরের পূর্বেই রাস্তাটির কাজ সম্পূর্ন করা হবে। এখন দেখা যাচ্ছে ঈদের পরেও রাস্তাটির এক তৃতীয়াংশ কাজ হবে না। এই বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশল অফিসে গিয়ে কর্মকর্তাকে না পেয়ে তার মোবাইলে ফোন করে ফোনটি সারক্ষন বন্ধ থাকায় তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। বর্তমানে ওই রাস্তায় চলতে না পেরে উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের জনসাধারণ ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতি দারুণ ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। সরকারে গুরুত্বপূর্ন সীমান্ত রক্ষীবাহিনী বিজিবি সদস্যগন কেও সর্বক্ষন অতি কষ্টে ওই পথে হাঁটা চলা করতে হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here