নেত্রকোনার সেই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে মামলা

নেত্রকোনা প্রতিনিধিঃ নেত্রকোনায় রোকেয়া আক্তার মিম (১৩) নামে এক গৃহকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগে আটক স্কুলশিক্ষিকা ফারজানা আক্তারের (৩০) বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। শুক্রবার গৃহকর্মী মিম বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাটি দায়ের করেছে।

ফারজানা আক্তার নেত্রকোনা শহরের নাগড়া এলাকার বাসিন্দা স্কুলশিক্ষক রাসেল মামুনের স্ত্রী এবং সদর উপজেলার উত্তর বিশিউড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষিকা। তাকে মামলায় একমাত্র আসামি করা হয়েছে।

গৃহকর্মী মিম নেত্রকোনা সদরের চল্লিশা রাজেন্দ্রপুর গ্রামের বাচ্চু মিয়ার মেয়ে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলমগীর জানান, স্কুলশিক্ষিকা ফারজানা আক্তারকে আদালতে সোপর্দ করা হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে পুলিশ নির্যাতিত গৃহকর্মীকে উদ্ধারসহ গৃহকর্ত্রীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

নেত্রকোনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বোরহান উদ্দিন খান জানান, বেশকিছু দিন ধরে কাজের মেয়ে মিমকে মারধর করে আসছিলেন গৃহকর্ত্রী ফারজানা। গত বুধবার রাতে মিমকে বেধরক পিটুনি দেন তিনি। বিষয়টি এলাকাবাসীর মাধ্যমে জানতে পেরে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে ওই গৃহকর্মীকে উদ্ধার করে গৃহকর্ত্রীকে আটক করা হয়।

ওসি আরও জানান, গৃহকর্মী মিমের মাথায়, চোখের পাশে, মুখে, পায়ে ও পিঠে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। উদ্ধারের পর মিমকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

আটকের পর ফারজানা আক্তার দাবি করেন, তিনি মানসিক রোগে ভুগছেন। চিকিৎসকের কাছ থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন। মানসিক রোগের কারণে মাঝে মাঝে রাগ হয় তার। এ কারণে মিমকে মারধর করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here