টলিউড শিল্পীরাই যখন সাংবাদিক !

বিনোদন ডেস্ক:বিনোদন জগতের তারকা আর বিনোদন সাংবাদিকদের সম্পর্ক অনেকটা না রাখতে পারি, না ছাড়তে পারি অবস্থা। তারকা নামের সাথে খ্যাতি আর কুখ্যাতি দুটোই সমান তালে পা মিলিয়ে চলে। কিন্তু নিজেদের স্ক্যান্ডাল নিয়ে সাংবাদিকদের কার্যকলাপ নিয়ে তারকারা সব সময়ই সাংবাদিকদের অপছন্দ করেন।

গণমাধ্যমকে এড়িয়ে চলার অনেক কারণই আছে তারকাদের। আর এসব কারণও সচেতন পাঠক মহল বেশ ভালই বোঝেন। তবে এতো সবের পরও টলিউড তারকারা বেশ কয়েকবার সাংবাদিকের চরিত্র করেছেন পুরো পেশাদারিত্বের সাথে।

টলিউডে সাংবাদিক চরিত্রে কাজ করা কয়েকজন তারকা ও সিনেমা হল,

শর্মিলা ঠাকুর, নায়ক (১৯৬৬)
সত্যজিৎ রায়ের অন্যতম মাস্টারপিস হল ‘নায়ক’ সিনেম। উত্তম কুমার ও শর্মিলা ঠাকুর অভিনীত ‘নায়ক’ সিনেমায় একজন মেধাবী সাংবাদিকের চরিত্রে অভিনয় করেন শর্মিলা ঠাকুর। ছবিতে তার চরিত্রের নাম থাকে অদিতি। নায়কের খ্যাতির আড়ালে দুঃক, কষ্ট আর একাকিত্বে ভোগা এক মানুষকে আবিস্কার করে অদিতি।

উত্তম কুমার, মেমসাহেব (১৯৭২)
নিমাই ভট্টাচর্যের বিখ্যাত উপন্যাস ‘মেমসাহেব’ অবলম্বনে ১৯৭২ সালে মুক্তি পায় উত্তম কুমার ও অপর্ণা সেন অভিনীত সিনেমা ‘মেম সাহেব’। এই ছবিতে উত্তম কুমারকে দেখা যায়, একজন সাংবাদিক রূপে যার রয়েছে বেশ পরিচিতি ও রাজনৈতিক যোগাযোগ। যার জীবনের কেন্দ্রবিন্দু শুধুই তার ‘মেম সাহেব’।

নন্দিতা দাস, শুভ মহরৎ (২০০৩)
একজন নায়িকা সাক্ষাৎকার দিচ্ছেন এক নারী সাংবাদিকরে কাছে। আর সাক্ষাৎকারের মুহুর্তেই নায়িকার অস্বাভাবিক মৃত্যু। পুলিশ মৃত্যুর রহস্য বের করতে শুরু করে গভীর তদন্ত। এই মৃত্যুকে কেন্দ্র করে বেড়িয়ে আসতে থাকে সিনেমা পাড়ার অনেক অজানা ঘটনা। আর এসবের সাথে যোগসূত্র হিসেবে কাজ করেন সেই নারী সাংবাদিক। সাংবাদিক মল্লিকা সেনের চরিত্রে দারুণ অভিনয় করেন নন্দিতা দাস।

রাধিকা আপটে, অন্তহীন (২০০৯)
সাম্প্রতিক সময়ের ভারতীয় বাংলা সিনেমার খ্যাতি সম্পন্ন সিনেমা অনিরুদ্ধ রায় চৌধুরীর ‘অন্তহীন’। অন্তহীন অপেক্ষা আর ভালবাসার গল্প বলা হয় এই সিনেমার দারুণ গাথুনির মাধ্যমে। যেখানে বৃন্দা (রাধিকা আপটে) একজন সাংবাদিক, যে ভালবাসায় জালে জড়িয়ে পড়ে একজন পুলিশ অফিসারের (রাহুল বোস) সাথে। তাদের পরিচয়হীন ভালবাসা চলতে থাকে, চলতে থাকে অপেক্ষা। কিন্তু অপেক্ষার প্রহর আর শেষ হয় না।

রাইমা সেন, ২২ শে শ্রাবণ (২০১১)
কলকাতায় চলছে একের পর এক ধারাবাহিক হত্যা। আর এই হত্যাকে কেন্দ্র করে তদন্ত করছে এক সাবেক পুলিশ অফিসার (প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়) এবং তার সহযোগী এক তরুণ অফিসার (পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়)। অপরদিকে এই ঘটনার আলাদা তদন্ত করছে দুই টিভি সাংবাদিক (রাইমা সেন ও আবির চট্টোপাধ্যায়)। অপরাধ, পুলিশ, সাংবাদিক আর অপরাধীর খোঁজ মিলিয়ে সৃজিত মুখোপাধ্যায় এর দ্বিতীয় ছবি ‘২২ শে শ্রাবণ’।

শূন্য অঙ্ক, কঙ্কনা সেন শর্মা (২০১৩)
গৌতম ঘোষের ছবি শূন্য অঙ্ক হল সমাজের বিভিন ক্ষেত্রের মানুষের এক সুতোয়, এক ঘটনায় বাধা পড়ার গল্প। ছবিটিতে ‘রাকা’ চরিত্রে অভিনয় করেন মেধাবী অভিনেত্রী কঙ্কনা সেন। সমাজ সচেতন রাকা তার কাজের প্রতি বেশ সচেতন আর দায়িত্বশীল। তাই ‘বিনোদন সাংবাদিকতা’ ছেড়ে নেমে পড়ে ট্রাইবালদের অধিকার আদায়ের কাজে। কঙ্কনা এর আগেও বলিউডে মধুর ভান্ডারকার পরিচালিত ‘পেজ ৩’ সিনেমায় সাংবাদিক চরিত্রে দারুণ অভিনয় করে।

অঙ্কুশ, কানামাছি (২০১৩)
রাজ চক্রবর্তীর পলিটিক্যাল থ্রিলার ধর্মী সিনেমা ‘কানামাছি’। এই ছবিতে অঙ্কুশ এবং শ্রাবন্তি দু’জন সাংবাদিক চরিত্রের দারুণ অভিনয় করে। তারা মূলত রাজনৈতিক নেতাদের অপকর্মের তথ্য ফাঁস করে।

শ্রাবন্তি, শেষ সংবাদ (২০১৬)
পল্লব গুপ্ত’র ‘শেষ সংবাদ’ এমন একটি ছবি যেখানে দেখানো হয়, একজন সৎ সাংবাদিক তার পেশার প্রতি কতটুকু কর্তব্যপরায়ণ হয়ে থাকে। আর কর্তব্য পালনে কত দূর পর্যন্ত যেতে পারে। ছবিটিতে একজন অনুসন্ধানী সাংবাদিকের চরিত্রে দেখা যায় শ্রাবন্তিকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here