শিক্ষার্থী আন্দোলনের বিষয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে খোলা চিঠি….

 মেহেদী হাসান রনি:

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,

শোকাহত আগষ্টে শস্রদ্ব সালাম গ্রহন করিবেন, কেমন আছেন শব্দটি শোকাহত মাসে উচ্চারন করিতে চাইনা আমি জানি এই মাসটি জাতীর জন্য একটি বেদনার মাস তার উপর সামনে নির্বাচন একের পর এক আন্দোলন বিরোধী দলের চাপ রাষ্ট্রো পরিচালনার প্রেসার সব মিলিয়ে হিম সিম তার পরেও আমাদের ভালো রাখার চেষ্টার ঘারতি নেই আপনার কাছে, কিন্তু আমাদের সমাজের এক শ্রেনীর আসাধু মানুষের কারনে সরকারকে ব্যার্থতার পরিচয় দিতে হয় কেন? এর কি সমাধান নেই? যাদের দিয়ে ভুত ছারাবেন তাদের যদী ভুতে পায় তাহলে ভুত ছারাবেন কাকে দীয়ে? কেউ নেই তাই স্কুলের বাচ্চারা ভুত ছারাতে রাস্তায় নেমে আসলো, ক্যানো? এর পিছনে নেপথ্য কি? একজন গাড়ির ড্রাইভার রাস্তা থেকে ফুটপাতে শিক্ষ্যার্থীদের উপর গাড়ি তুলে চাপা দিয়ে মানুষ মারলো তার বিচার কি চাওয়া অন্নায়? আর পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান হেসে বলে দুজন মানুষ মারা গেছে তাতে আন্দলনের কি প্রয়োজন, তার মানে কি? উস্কানি মুলক কথা, কেন স্বরকে দুর্ঘটনা হয় তার দুটি কারন ১ অপ্রাপ্ত বয়স্ক বাচ্চাদের হাতে ড্রাইভিং করান ২ মাদক সেবনের কারনে তাদের ভবিস্বত চিন্তা ধংশ হয়ে যায় আর সেই কারনে মানুষ মারলে কি হবে সেই চিন্তা তাদের মাথায় কাজ করেনা, এই মাদক আমদানির পিছনে জড়িত কারা একটি নাম উঠে আসবে পুলিশের সহায়তায় মাদক পাচার হয় , ফিটনেস বিহিন গাড়ি রাস্তা থেকে তুলে দেয়ার দায়িত্ব কার পুলিশের, সেই পুলিশ নিজেরাই চলে কাগজ পত্র ছারা ফিটনেস বিহিন গাড়িতে আর যার ড্রাইভারের বয়স হাইস্কুলের মাঝামাঝি, কে দিলো তাকে লাইসেন্স, পুলিশের গাড়িচালাতে নাকি লাইসেন্স লাগেনা তবে সেনাবাহিনি কেন লাইসেন্স ছাড়া গাড়িতে ওঠেনা এক দেশেতো দুই নিয়ম হতে পারেনা, ফিটনেস বিহীন গাড়ির মালিকের কাছথেকে মাসহারা নিয়ে রাস্তায় নামার অনুমতি দ্যায় কে পুলিশ, যেই দেশে পরিবহন গাড়ির ফিটনেস নাই ড্রাইভারের লাইসেন্স নাই, পুলিশের গাড়ির লাইসেন্স নাই, ফিটনেস বিহিন ডিবির গাড়ি, লাইসেন্স ছাড়া দুদকের গাড়ি, কে বিচার করবে বিচারকের নিজের গাড়ির ওতো লাইসেন্স নেই তার বিচার কে করবে মন্ত্রী সে নিজেওতো উল্টো রাস্তায় গাড়ি চালায়, তার বিচার কে করবে প্রধান কার্যালয় তার গাড়ির ওতো লাইসেন্স নেই, কাদের দিয়ে কি ভাবে আপনি ডিজিটাল দেশ তৈরি করবেন? নিরাপদ সড়কের দাবীতে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা রাষ্ট্র মেরামতের কাজে রাস্তায় নেমেছে এর চেয়ে লজ্জা আর কি হতে পারে এর পরেও যদী আমাদের দেশের পুলিশ প্রসাশন সরকারি দফতর মন্ত্রী এমপিরা ঠিক না হয় তার দায় ভার কার? নিরাপদ সড়কের দাবীতে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নয় দফা দাবীর সাথে একাত্বতা প্রকাশ করে এর দ্রুত বাস্তবায়ন এবং নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খানের অশোভন আচরনের নিন্দা জানিয়ে তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহনের দাবী জানাচ্ছি পরিবহন খাতের অরাজগতায় সবাই ভুক্তভোগী হবার পরও নিরবে মেনে নেওয়ার মানসিকতার প্রেক্ষাপটে ছাত্রসমাজ এর প্রতিকারে যে ভূমিকা নিয়েছে তাকে ঐতিহাসিক আখ্যায়িত করে ছাত্র সমাজকে ধন্যবাদ জানাই এবং পরিবহন খাতের বেপরোয়াপনার জন্য নৌ পরিবহন মন্ত্রীর প্রশ্রয়কে দায়ী করে তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়ার দাবী জানাই।সড়ক পরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে ছয় দফা নির্দেশনা দিয়েছিলেন, শিক্ষার্থীদের নয়দফা মূলত তারই বর্ধীত রূপ। ছাত্র সমাজের নয় দফা মেনে নেওয়ার জন্য মাননীয় প্রধান মন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি দ্রুত এসব দাবী পুরনের আহবান জানাই পাশাপাশি কোমলমতি শিশুদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আইন হাতে তুলে না নেওয়ার অনুরোধ করছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আরো জোরাল অনুরোধ জানাচ্ছি কোন শিক্ষার্থীকে অযথা পুলিশি হয়রানি এবং কোন স্কুল কমিটি তাদের টিসি বা হয়রানি মুলক কার্যক্রম না করে তার ব্যাবস্থা করার সুপারিশ করছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আস্থা রাখার আহবান জানিয়ে নয় দফা পূরনে সরকারকে যৌক্তিক সময় দিয়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যাবার অনুরোধ জানাচ্ছি।

লেখক মেহেদী হাসান রনি,

কেন্দ্রীয় যুগ্ন মহাসচিব ও সাধারন সম্পাদক বরিশাল মহানগর,

ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি (এনপিপি)

০৪/০৮/২০১৮

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here