ডাক্তার সংকটে চিকিৎসা ব্যহত

জামালপুর  প্রতিনিধিঃ জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তার সংকটে চিকিৎসা সেবা ব্যহত হচ্ছে।

৫০ শয্যার হাসপাতালটিতে ৩৩ জন ডাক্তারের পদ থাকলেও কর্মরত রয়েছেন মাত্র ৭ জন। এর মধ্যে ৪জনই প্রেষণে অন্যত্র কর্মরত রয়েছেন। মাত্র ৩ জন ডাক্তার দিয়ে চলছে এ অঞ্চলের ৬লক্ষাধিক মানুষের স্বাস্থ্য সেবা। এতে নদীভাঙনকবলিত দরিদ্রতম এ উপজেলার মানুষ স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

জানা যায়, যমুনা-ব্রহ্মপুত্র বিধৌত ইসলামপুরের একটি পৌরসভা ও ১২টি ইউনিয়নের লোকসংখ্যা সাড়ে ৫ লক্ষাধিক। এছাড়া নিকটবর্তী মেলান্দহ উপজেলার দুরমুঠ ইউনিয়নের অর্ধলক্ষাধিক মানুষ এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপর নির্ভরশীল।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আওতাধীন ৩টি ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রসহ হাসপাতালটিতে ৩৩ জন ডাক্তারের পদ রয়েছে। এর মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাসহ ৮ জন ডাক্তার কাগজ-কলমে কর্মরত থাকলেও ৪ জন ঢাকা ও টাঙ্গাইলসহ বিভিন্ন স্থানে প্রেষণে রয়েছেন।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ২টি অ্যাম্বুল্যান্স থাকলেও একটি দীর্ঘদিন ধরে অকেজো হয়ে পড়ে রয়েছে। এছাড়া ডাক্তার সংকটের কারণে পূর্ণাঙ্গ অপারেশন থিয়েটারটি প্রায় ৫ বছর যাবৎ বন্ধ রয়েছে। এতে দরিদ্রপীড়িত অঞ্চলের রোগীরা স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এলাকাবাসী জানায়, হাসপাতালে বহিরাগত দালালদের দৌরাত্ম, অপরিচ্ছন্নতা ও ডাক্তার সংকটের কারণে অনেক রোগী বিনা চিকিৎসায় ফিরে যায়।

ভূক্তভোগী রোগীরা জানান, হাসপাতালালের পূর্ণাঙ্গ অপারেশন থিয়েটারে এক সময় সিজারসহ প্রতিদিন বিভিন্ন অপারেশন করা হতো। এতে দরিদ্র মানুষরা উপকৃত হতো। দীর্ঘদিন ধরে অপারেশন বন্ধ থাকায় এলাকাবাসী চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এবং অপারেশন থিয়েটার মূল্যবান যন্ত্রাংশ অব্যবহৃত অবস্থায় নষ্ট হচ্ছে। হাসপাতালের একমাত্র আলট্রাসনোগ্রাম মেশিনটিও দীর্ঘদিন যাবৎ নষ্ট হয়ে পড়ে রয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. একেএম শহীদুর রহমান জানান, ডাক্তার সংকটে হাসপাতাল চালানো সমস্যা হচ্ছে। তিনি বলেন, প্রেষণ বাতিলসহ শূন্যপদে ডাক্তার চেয়ে উর্দ্ধরত কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here