মায়ের সঙ্গে দুজনের প্রেম, একসঙ্গে দেখে ফেলাই কাল হলো ছেলের

বরিশাল প্রতিনিধি:বরিশালের উজিরপুরে নিখোঁজের চারদিন পর দীপ্ত মণ্ডল নামে আট বছর বয়সী এক শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মায়ের পরকীয়ার কারণে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে ধারণা স্থানীয়দের।

মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার হারতা-সাতলা খাল থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। দীপ্ত মণ্ডল উপজেলার হারতা ইউনিয়নের কাজী বাড়ি গ্রামের দীপক মণ্ডলের ছেলে।

এ ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতাররা হলেন- কাজী বাড়ি গ্রামের রতন বিশ্বাস ও তার স্ত্রী ইভা এবং নয়ন শীল।

স্থানীয়রা জানায়, ২৭ মে রাতে নিখোঁজ হয় দীপ্ত। এরপর বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তার কোনো সন্ধান পাননি স্বজনরা। তবে প্রতিবেশী রতন বিশ্বাস ও নয়ন শীলের ওপর সন্দেহ হয় তাদের। ৩০ মে গভীর রাতে হারতা বাজারের ছোট ব্রিজ এলাকায় পানি দিয়ে নিজের সেলুনের মেঝে পরিষ্কার করছিলেন নয়ন। এ সময় সন্দেহ আরো বেড়ে যায়। পরে নয়ন ও তার ঘরমালিক রতন বিশ্বাসকে ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করেন শিশুটির পরিবারের লোকজন। একপর্যায়ে রাত সাড়ে ৩টার দিকে দীপ্তকে হত্যার কথা স্বীকার করেন তারা।

এরপর থানায় খবর দিলে ভোর সাড়ে ৫টার দিকে হারতা বাজারের পার্শ্ববর্তী খাল থেকে দীপ্তর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নয়ন শীলের সেলুনে দীপ্তকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা স্থানীয়দের। তালাবদ্ধ সেলুনের ভেতরে থাকা লাশে পচন ধরে গন্ধ বের হওয়ায় ৩০ মে গভীর রাতে বস্তাবন্দি করে খালে ফেলে দেওয়া হয়। দীপ্তর মায়ের সঙ্গে রতন ও নয়নের প্রেম চলছিল। একদিন তাদের একসঙ্গে দেখে ফেলে দীপ্ত। এ কারণেই তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

উজিরপুর মডেল থানার ওসি আলী আর্শাদ জানান, ছেলে নিখোঁজের বিষয়ে ২৮ মে রাতে উজিরপুর মডেল থানায় একটি জিডি করেন দীপ্তর বাবা দীপক মণ্ডল। এ ঘটনায় রতন বিশ্বাস ও তার স্ত্রী ইভা এবং নয়ন শীলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শিশুটির লাশ উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় অন্য কেউ জড়িত আছে কিনা বা কী কারণে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here